১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

সুপ্রীমকোর্টে নারী বিচারক মনোনয়নের বিরুদ্ধে আফগান ওলামা পরিষদ


আফগানিস্তানের একটি প্রভাবশালী ওলামা পরিষদের সদস্যরা সুপ্রীমকোর্টের বিচারক পদে প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির একজন নারীকে মনোনয়নের প্রতিবাদ করেছেন। যে দেশে একসময় তালেবান নারীদের বেশিরভাগ সরকারী কর্মক্ষেত্রে নিষিদ্ধ করেছিল সেখানে এটি এক গুরুত্বপূর্ণ নিয়োগ। গনি সুপ্রীমকোর্টে প্রথম এক নারীকে নিযোগদানের জন্য যে নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন গত সপ্তাহের এই সিদ্ধান্ত ছিল তারই বাস্তবায়ন। খবর এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের।

তবে রক্ষণশীল আইন প্রণেতারা পার্লামেন্টে আনিসা রাসুলির নিয়োগ অনুমোদনের বিরোধিতা করতে পারবে না। বর্তমানে আনিসা একটি কিশোর আদালতের প্রধান। নাগরিক অধিকার কর্মীদের জন্য এই পদক্ষেপ একটি ভাল খবর হলেও তারা এই ভেবে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যে, ২০০১-এ মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক হস্তক্ষেপে। তালেবান সরকার উৎখাতের ১৩ বছর পরে অধিকাংশ বিদেশী সৈন্য প্রত্যাহার করে নেয়ায় নারীদের অর্জিত অগ্রগতি ম্লান হয়ে যেতে পারে।

ইসলামী আইনের কঠোর ব্যাখ্যা দ্বারা শাসনকারী তালেবান নারীদের কাজ করা, স্কুলে শিক্ষা লাভ কিংবা একজন পুরুষ সঙ্গীছাড়া গৃহত্যাগ নিষিদ্ধ করে এবং তাদের আপাদমস্তক বোরখায় ঢেকে রাখতে বাধ্য করে। এক দশকেরও বেশি সময় পরে আগফানিস্তান প্রধানত একটি রক্ষণশীল সমাজ হিসেবে থেকে গেছে এবং প্রভাবশালী ধর্মীয় নেতাদের সংগঠন উলামা পরিষদের সদস্যরা গনির সঙ্গে এক বৈঠকে আনিসার মনোনয়নের প্রতিবাদ করেন। গত ১২ জানুয়ারি ওই বৈঠকে যোগদানকারী পরিষদের একজন সদস্য শামস-উল-রহমান ফ্রোতান বলেন, আমরা তাকে বলেছি, একজন নারী মৃত্যুদ-যোগ্য অপরাধ এবং অন্য গুরুতর অপরাধের বিচারক হতে পারে না। আনিসার অনুমোদনের বিষয়টি পার্লামেন্টের রক্ষণশীল আইনপ্রণেতাদের বিরোধিতার মুখে পড়তে পারে।