২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ফ্যাশনে বাবা দিবসের ছোঁয়া


হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের সাড়া জাগানো ‘আয় খুকু আয়’ গানটি শুনে বাবার প্রতি মন আনচান করে ওঠেনি এমন মানুষ হয়ত খুঁজে পাওয়া যাবে না। বাবা শব্দটি ছোট হলেও এর বিশালতা পরিমাপ করা অসম্ভব। ছোট থেকে বড় হওয়া পর্যন্ত যে শিক্ষকটি নিজ হাতে গড়ে তুলেন সেই তো হলেন বাবা। বট গাছ যেমন তার বিশাল ছায়া দিয়ে আগলে রাখে পথিককে ঠিক তেমনি বাবা তার বিশালতা দিয়ে আগলে রাখেন পরিবারকে। সমস্ত ঝড় ঝঞ্ঝা দু’ হাতে সরিয়ে দিয়ে বিপন্মুক্ত রাখেন পরিবারের অন্য সদস্যদের। কখনই কোন অঘটন ঘটতে বা বুঝতে দেন না। ধারণা করা হয় ১৯০৮ সাল থেকেই বাবা দিবসের সূচনা। তবে প্রথম বাবা দিবস পালন করা হয় ১৯১০ সালে। মা দিবসের জনপ্রিয়তাই বাবা দিবসের উৎপত্তির সহায়ক। সে যাই হোক না কেন নির্দিষ্ট কোন দিবস দিয়ে বাবার প্রতি ভালবাসা বিচার করা যায় না। বাবা যেমন সব সময়ের জন্য ঠিক তেমনি তার প্রতি ভালবাসা সব সময়ের জন্য। তবে দিবস থাকাতে একটি বিষয় খুব ভাল হয় তা হলো বিশেষ ঐদিনটিকে বাবার প্রতি ভালবাসা আরও বেড়ে কয়েকগুণ হয়। যা অবশ ইতিবাচক দিক। আবার অনেকে সাড়া বছরে বাবার জন্য টুকটাক কিছু করলেও দিবসকে কেন্দ্র করে সারপ্রাইজ দিয়ে থাকে। যা অন্যরকম এক আবহ ফুটিয়ে তোলে। সত্যিকার অর্থেই এ যেন এক অন্যরকম দিন। আর এ উৎসব মুখর দিনকে কেন্দ্র করে পিছিয়ে নেই ফ্যাশন হাউসগুলো। কারণ বাবা দিবসে বাবা স্পেশাল কিছু গিফট দেয়াটা অন্যরকম আনন্দের। সে আনন্দ থেকে কে বঞ্চিত চায়? তাই তো ফ্যাশন হাউসগুলো পসরা সাজিয়েছে বাবা কে উপহার দেয়ার জন্য। বাবার জন্য সাজানো রয়েছে শার্ট, পলো টি-শার্ট, ফতুয়া, টি-শার্ট, পাঞ্জাবি এবং স্যুট পিস। এছাড়া অন্যান্য উপহার সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে সেভিং সেট, পারফিউম সেট, হাতঘড়ি, টাই, চশমা ও সানগ্লাস।

বাবার প্রতি ভালবাসা বা কৃতজ্ঞতা যদিও ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়, তার পরেও একটি দিনের জন্য বাবাকে চমকে দিলে হয়ত মন্দ নয়। আর এ বিষয়গুলো মাথায় রেখে ফ্যাশন হাউস এবং গিফট শপগুলো সেরে রেখেছে নানা আয়োজন। বিভিন্ন প্যাকেজের গিফট ছাড়াও রয়েছে নানা রকম ডিসকাউন্ট। আর চোখ ধাঁধানো বাবা দিবসের কার্ড শোভা পাচ্ছে আর্চিজ, হলমার্ক ছাড়াও বিভিন্ন গিফট হাউসে। আর এখন তো অনলাইন শপিং সেন্টারগুলোতেও পাওয়া যাচ্ছে নানা রকম পণ্য। শুধু মাত্র ক্লিক করলেই হাতের নাগালে চলে আসবে এইসব প্রোডাক্টগুলো। প্রয়োজন শুধু পছন্দসই পণ্য খুঁজে বের করা। বাবা শব্দটির ভেতর খুঁজে পাওয়া যায় এক ধরনের প্রশান্তি এক ধরনের আশ্রয়। যে আশ্রয় সব সময়ের জন্যই নিরাপদ। বাবার বাহুডোরের থেকে নিরাপদ বোধহয় অন্য কোন ঢাল হতে পারে না। আর সে বাহুডোরে থেকেই বাবার প্রতি ভালবাসা প্রকাশ করার সুযোগ হয়ত সব সময় মিলবে না। আর সুযোগেই চিৎকার করে বলা উচিত বাবা তোমাকে ভালবাসি। যাদের বাবা নেই তাদের এ শব্দের জোর বোধহয় আরও বেড়ে যাবে। মন থেকে বেরিয়ে আসবে বাবা যেখানেই থাক ভাল থেক। প্রতিটি দিনই হোক বাবা-মাকে ভালবাসার দিন।

ছবি : নাসিফ শুভ

মডেল : আনোয়ারুল শামীম ও তার মেয়ে