২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

হিলিতে ৯ বছর পর বাবা-ছেলের মিলন


স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর ॥ হারিয়ে যাওয়া ছেলেকে নিতে সেই চাঁদপুর থেকে এক বুক আশা নিয়ে এসেছেন বাবা শাহজালাল। আর অন্যদিকে ভারতের বন্দীশিবির থেকে সদ্য মুক্ত হয়ে দেশে ফিরছে ছেলে মনির খান। এখন অপেক্ষা শুধু সীমান্তের আনুষ্ঠানিকতার। কিন্তু দীর্ঘ কয়েকটি বছর যখন বাবা-ছেলেকে অন্তর থেকে কেউ আলাদা করতে পারেনি, তখন আত্মার বন্ধনকে সীমান্তের সৃষ্ট বিজিবি-বিএসএফের প্রাচীর কতক্ষণ আলাদা করে রাখবে। সেই চিত্র দেখা গেল রবিবার দিনাজপুরের হিলি সীমান্তের চেকপোস্টে। তখন দুপুর ১২টা। হিলি চেকপোস্টের ২৮৫/১১নং সাব সীমানা পিলার। ভারতের দক্ষিণ দিনাজপুরের বালুঘাট শুভায়ন অবজারভেশন হোমে বন্দী তিন শিশুকে বাংলাদেশে হস্তান্তরের জন্য আনা হয় ওই চেকপোস্টে। সেখানে তাদের রেখে শুরু হয় হস্তান্তরে ভারত হিলি চেকপোস্ট অভিবাসন পুলিশের কার্যক্রম। কিছুটা দূর থেকে দেখে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে পিতা-পুত্র। কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতার পর অপেক্ষার পালা শেষ হয়। হস্তান্তর করা হলে তিন শিশু ফিরে আসে দেশে। মনিরের বাবা দিনমজুর শাহজালাল জানান, পরিবারে অভাব থাকায় কাজের জন্য মনিরকে নিয়ে নারায়ণগঞ্জের পোস্তগোলায় আসি। তখন তার বয়স ছিল ৫-৬ বছর। সেখান থেকে ২০০৬ সালে হারিয়ে যায় মনির। এমন কোনও জায়গা বাদ নেই যে তার খোঁজ করা হয়নি। কিন্তু কোথাও তার সন্ধান পাইনি। এ অবস্থায় ছেলের আশা ছেড়েই দিয়েছিলাম। হঠাৎ একদিন পত্রিকায় ছেলের ছবি দেখে চিনতে পাই। নতুন আশায় বুক বাঁধি। ছেলে আছে ভারতের শিশু নিবাসে।

মনির জানায়, আমি কিভাবে ভারতে গেছি তা মনে নেই। শুধু জানি আমি বাংলাদেশের। ভারতের দিল্লী থেকে আমাকে পুলিশ উদ্ধার করে সেখানকার শিশু হোমে আটক রাখে। গত বছর সেখান থেকে বালুঘাট অবজারভেশন হোমে নিয়ে আসে। সেখানে সে হিন্দি ভাষায় লেখাপড়া করে এসএসসি সমমানের সনদও অর্জন করেছে। এ কারণে ঠিকতম বাংলা বলতে পারে না। এদিকে দীর্ঘ ৯ বছর পর বাবা-ছেলে কাছাকাছি হওয়ায় একে অপরকে জড়িয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। তাদের কান্না দেখে উপস্থিত লোকজনের চোখেও জল আসে। বাংলাদেশের হিলি চেকপোস্টের অভিবাসন পুলিশের ওসি রফিকুজ্জামান বলেন, নারায়ণগঞ্জের কদমতলির পোস্তাগোলর শাহজালালের ছেলে মনির খান ৯ বছর, বি.বাড়িয়ার বিজয়নগর এলাকার মৌলভী জালাল উদ্দীনের ছেলে আকরাম ২ বছর ও জয়পুরহাটের পাঁচবিবির মালেপাড়ার আশরাফ ম-লের ছেলে নিপুল ২ বছর ধরে সেখানে আটক ছিল। পাচারকারীরা বিভিন্ন সময়ে তাদের সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে নিয়ে যায়। রবিবার তাদের ভারতের হিলি চেকপোস্টের অভিবাসন পুলিশ আমাদের কাছে হস্তান্তর করেছে। পরে তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।