২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

শূন্যপদে বিচারক পেলে মামলা জট ৫০ ভাগ কমবে ॥ প্রধান বিচারপতি


স্টাফ রিপোর্টার ॥ প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেছেন, দেশের বিচার বিভাগে জমে থাকা পাহাড় সমান মামলার জট কমাতে শূন্যপদে বিচারক নিয়োগ প্রয়োজন। শূন্যপদে ৪৫৭ জন বিচারক পেলে আগামী দুই বছরের মধ্যে বিশাল মামলা জটের ৪০ থেকে ৫০ ভাগ কমে আসবে। শনিবার রাজধানীর ধানম-িতে একটি হোটেলে বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিস এ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত প্রধান বিচারপতির সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এ সব কথা বলেন।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেন, মরচে ধরা বিচার ব্যবস্থাকে যুগোপযোগী করা, মামলার জট সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসাই আমার কাজ। তিনি আরও বলেন, ৬৪ জেলায় ৩৪২ জন বিচারক আছেন। তারা ১৬৪টি এজলাসে বসে বিচার কাজ করেন। বাকি বিচারকদের যদি বসে বসে বেতন-ভাতা নিতে হয় তাহলে কিভাবে মামলার জট কমবে। প্রধান বিচারপতি বলেন, গোপালগঞ্জ ও ফরিদপুরে গিয়ে দেখলাম এজলাস সঙ্কটে বিচারকদের বসে থাকতে হয়। কোন কোন জেলায় তিনজন ম্যাজিস্ট্রেট মিলে একটি কোর্ট ব্যবহার করছেন। এ সময় আইনমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, আবাসন সঙ্কট কাটানোর ব্যবস্থা করলে মামলার জট সহনীয় হবে। তিনি বলেন, তা না হলে ১০ বছর পর এই মামলা সংখ্যা দিগুণ হয়ে যাবে।

প্রধান বিচারপতি বলেন, বর্তমানে বিচারিক আদালতে ২৭ লাখ ১৩ হাজার ৩৭৩টি মামলার বিপরিতে বিচারক ১০৯৪ জন। সে হিসেবে ২ হাজার ৪৮০টি মামলার জন্য একজন বিচারক, যা পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল। প্রতিবছর প্রায় ৬ লাখ মামলা বাড়ছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এ বিষয়ে দ্রুত যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে মানুষ ভোলানো ছাড়া আর কিছুই করতে পারব না। এজন্য প্রতিবছর এক শ’ কোটি টাকা চাই। প্রতিবছর ১০টি করে জেলায় বিল্ডিং তৈরি করতে পারলে ১০ বছরের মধ্যে বিচারকদের আবাসন সঙ্কট কাটিয়ে উঠা সম্ভব বলেও মনে করেন তিনি। জুডিসিয়াল সার্ভিস এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও ঢাকা জেলা দায়রা জজ আদালতের বিচারক এস এম কুদ্দুস জামানের সভাপতিত্বে সংবর্ধনায় আরও বক্তব্য দেনÑ আইনমন্ত্রী এ্যাডভোকেট আনিসুল হক, আইন সচিব আবু সালেহ শেখ মোঃ জহিরুল হক। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সারাদেশ থেকে আসা জেলা জজ ও ম্যাজিস্ট্রেটগণ উপস্থিত ছিলেন।