২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

যশোর পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু


স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ যশোর পৌরসভার মেয়রের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগের তদন্ত শুরু হচ্ছে। আজ তদন্ত কাজে স্থানীয় সরকার বিভাগের যুগ্ম সচিব এবিএম আরশাদ হোসেন যশোর আসছেন বলে জানিয়েছে সূত্র। তবে তার এ আগমনে গোপনীয়তা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে পৌর নাগরিক অধিকার আন্দোলন কমিটি।

২০১৪ সালের ১৩ জুলাই পৌর নাগরিক অধিকার আন্দোলন কমিটি যশোর পৌরসভার মেয়রের বিরুদ্ধে বিধি বহির্ভূত করারোপ, দুর্নীতি, অনিয়ম, টেন্ডারবাজি, গোপনে নিয়োগ, দলবাজির অভিযোগ এনে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় মন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে। পরবর্তীতে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা অনুয়ায়ী চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি সকাল ১১টায় সার্কিট হাউসে অভিযোগ তদন্তের দিন ধার্য হয়। কিন্তু অনিবার্য কারণবশত ওই দিন তদন্ত কার্যক্রম স্থগিত করা হয়। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, স্থানীয় সরকার বিভাগের যুগ্ম সচিব এবিএম আরশাদ হোসনে যশোর আসছেন। রবিবার সকালে তিনি তদন্ত কাজ শুরু করবেন।

কিশোরগঞ্জে স্বামীর স্বীকৃতি পেতে অনশন

নিজস্ব সংবাদদাতা, কিশোরগঞ্জ, ১৩ জুন ॥ কিশোরগঞ্জ সদরের মারিয়া গ্রামে স্বামীর স্বীকৃতি পেতে গৃহবধূ দেলোয়ারা বেগম (২৮) গত ৫ দিন ধরে শ্বশুরবাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন। শুধু এ দাবি পূরণের লক্ষ্যে লোকলজ্জা-সঙ্কোচ ঝেরে ফেলে দিন-রাত তিনি বসে রয়েছেন। কিন্তু এতে তিনি কারও কোন সাড়া পাচ্ছেন না। এদিকে দৃঢ়চেতা ওই নারীকে একনজর দেখতে উৎসুক লোকজন প্রতিদিনই ভিড় করছেন। এ অবস্থায় শ্বশুরবাড়ির লোকজন বসতঘরে তালা দিয়ে পালিয়েছে বলে জানা গেছে। জানা গেছে, প্রায় এক বছর পূর্বে মোবাইল ফোনে সদর উপজেলার মারিয়া গ্রামের মৃত রিয়াজ উদ্দিনের ছেলে হেলাল উদ্দিনের (৫০) সঙ্গে জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার সুখিয়া কুর্শাকান্দা গ্রামের মৃত নূর মোহাম্মদ ভূঁইয়ার মেয়ে দেলোয়ারা বেগমের (২৮) প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত ৬ মাস আগে তাদের পারিবারিকভাবে বিয়েও হয়। এরপর তারা স্বামী-স্ত্রী হিসেবে শহরের বত্রিশে বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করেন। অনশনরত দেলোয়ারা জানান, বিয়ের পর বাড়িতে নিয়ে যেতে বললে হেলাল প্রতিবারই তাকে ভাড়া বাসা নিয়ে বসবাস করতেন। এ নিয়ে প্রায়ই তাদের মধ্যে মনোমালিন্য হয়।