২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

সেই থাই সেনা কর্মকর্তার সম্পদ জব্দ


অনলাইন ডেস্ক ॥ মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলিম ও বাংলাদেশীদের পাচারের সঙ্গে জড়িত থাই সেনাবাহিনীর লেফট্যানেন্ট জেনারেল মানাস কংপানের আরও ৩ কোটি ৪০ লাখ বাথ (৭ কোটি ৮৬ লাখ টাকা প্রায়) সমমূল্যের সম্পদ জব্দ করা হয়েছে। দেশটির অর্থপাচার বিরোধী বিভাগ (আমলো) এগুলো জব্দ করে। খবর ব্যাংকক পোস্টের।

এ নিয়ে মানাসের এ পর্যন্ত ১০ কোটি ৯০ লাখ বাথ (২৫ কোটি ১৯ লাখ টাকা প্রায়) সমমূল্যের সম্পদ জব্দ করা হল।

আমলো’র প্রধান পুলিশ কর্নেল সিহানার্ত প্রায়ুনরাৎ জানান, এ নিয়ে চতুর্থ দফায় মানাসের সম্পদ জব্দ করা হল। নতুন জব্দের তালিকায় ৬৮ ধরনের সম্পদ ও ৪০ লাখ বাথের ব্যাংক এ্যাকাউন্টও রয়েছে।

তিনি আরও জানান, সম্প্রতি মানাসের সংশ্লিষ্ট একটি ব্যাংক এ্যাকউন্টের থেকে অন্য এ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করা ৩ কোটি বাথের খোঁজ পাওয়া গেছে। তবে এ অর্থ মানবপাচার সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম থেকে পাওয়া কি না তা নিশ্চিত করতে পারেননি তিনি।

তিনি বলেন, ‘যদি পুলিশ স্পষ্ট প্রমাণ পায় যে, এই অর্থও মানবপাচার বাণিজ্য থেকে এসেছে তাহলে তাও জব্দ করা হবে।’

তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্যে মানাসের যে অর্থ জব্দ করা হয়েছে সেগুলো পাচারকারী দালালের মাধ্যমে তার কাছে এসেছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। ওই দালালের কাছ থেকে অর্থ নেওয়ার মাধ্যমেই প্রমাণিত হয় যে, মানাস সরাসরি মানবপাচারের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

সম্প্রতি আন্দামান ও বঙ্গোপসাগর দিয়ে মানবপাচার এবং তাদের আটকে রেখে নির্যাতনের বিষয়টি প্রকাশ পাওয়ার পর থাইল্যান্ড সরকার এর বিরুদ্ধে অভিযানে নামে। এর অংশ হিসেবে গত ৩ জুন মানাসের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। এরপর তিনি পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেন।

এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে থাই সেনাবাহিনীর জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টার পদ থেকে মানাসকে বরখাস্ত করা হয়। বরখাস্তকালীন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে তাকে কোনো বেতন দেওয়া হবে না বলে জানানো হয়েছে।