২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

পাচার থেকে রক্ষা পেল রাজশাহীর তিন নারী


স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ পুলিশী তৎপরতায় পাচারকারীদের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছেন তিন নারী। মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে চাকরির নাম করে সংঘবদ্ধ পাচারকারীচক্র তাদের পাচার করে দেয়ার পরিকল্পনা করছিলো। তবে ওই তিন নারীকে উদ্ধারসহ পাচারকারী চক্রের এক নারী সদস্যকে গ্রেফতার করেছে রাজশাহী পুলিশ।

উদ্ধার তিন নারী হলেন, জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার বংপুর গ্রামের মিলিআরা খাতুন (১৭), আশা খাতুন (১৭) ও খাদিজা খাতুন (১৬)। পুলিশ তাদের গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর উপজেলার ডাইকিনি গ্রামের রজব আলী ওরফে মজনুর বাড়ি থেকে উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় পাচারকারী চক্রের এক নারী সদস্য গোদাগাড়ীর বংপুর এলাকার আকতারা বেগম কে গ্রেফতার করেছে। শনিবার দুপুরে রাজশাহী পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে পাচারকারীদের হাত থেকে বেঁচে যাওয়া তিন নারীকে সাংবাদিকদের সামনে হাজির করা হয়।

এসময় ভিকটিমরা সাংবাদিকদের জানায়, মধ্যেপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে ভালো বেতনে চারকি দেয়ার নাম করে তাদের প্রলোভন দেয় একই গ্রামের আকতারা বেগম। গত ১৮ মে গোপনে তাদের তিনজনকে বাসে করে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার ডাইকিনি গ্রামের রজব আলী ওরফে মজনুর বাড়িতে রাখে। শুক্রবার তাদের নন্দন পার্কে নিয়ে গিয়ে জীবন, লতিফ ওরফে কাজেম ও রমজানসহ আরো কয়েকজনের সঙ্গে দেশের বাইরে পাঠিয়ে দেয়া হবে বলে আকতারা বেগম তাদের জানায়।

পুলিশ জানায়, ঘটনার পরে ভিকটিমের পরিবারের লোকজনরা বিষয়টি গোদাগাড়ী থানা পুলিশকে অবহতি করেন। পুলিশ বিষয়টি খোঁজখবর নেয়ার জন্য মাঠে নামে। পুলিশ তাদের মোবাইল ফোনের কললিষ্ট চিহ্নিত করে খোঁজ শুরু করেন। অনুসন্ধানের এক পর্যায়ে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার ডাইকিনি গ্রামের রজব আলী ওরফে মজনুর বাড়িতে ওই তিন নারী আছে বলে পুলিশ জানতে পারেন। পরে সেখানে অভিযান চালিয়ে গোদাগাড়ী থানা পুলিশ কালিয়াকৈর থানার সহযোগিতায় শুক্রবার রাতে তাদের উদ্ধার করে।

এদিকে তাদের উদ্ধারের পর ভিকটিম মিলি আরা খাতুনের পিতা আনারুল ইসলাম বাদী হয়ে গোদাগাড়ী থানায় মানব পাচার প্রতিরোধ দমন আইনে মামলা দায়ের করলে পুলিশ রাতেই অভিযান চালিয়ে মামলার প্রধান আসামী আকতারা বেগমকে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন রাজশাহী পুলিশ সুপার।