২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

আমি আমার মতো ॥ কোহলি


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ এর দুটি অর্থ হয়। অহঙ্কার অথবা বিনয়। বক্তব্যদাতা যেহেতু বিরাট কোহলি মানুষ তাই প্রথমটাই খুঁজবেন! আসলে তা নয়। ‘ক্রেজি’ কোহলি যুক্তি দিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করেছেন, তিনি ও মহেন্দ্র সিং ধোনি আলাদা মানুষ। তাদের মেজাজ-মর্জি, চিন্তা-চেতনা ভিন্ন হবে এটাই স্বাভাবিক। কে কেমন? এই প্রশ্নটা আরও বেশি করে সামনে আসছে, কারণ গত অস্ট্রেলিয়া সফরে টেস্ট থেকে অবসর নিয়েছেন মাহি। সাদা পোশাকে মোড়ল ভারতের সেনাপতি এখন কোহলি। আসন্ন বাংলাদেশ সফর দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হচ্ছে কোহলি অধ্যায়।

‘ধোনি আর আমি দুজন আলাদা মানুষ। আমাদের চরিত্রও ভিন্ন। তাহলে কেন ধোনির সঙ্গে আমাকে তুলনা করা হবে? আমি কাউকে অনুকরণ করব না, কারও জন্য নিজেকে বদলাবও না। আমাকে আমার মতো আগ্রাসী মেজাজেই পাওয়া যাবে। কারণ এটাই আমার পরিচয়। চাইব, যাতে আমার চিন্তাটা আমার মুখে ফুটে না ওঠে। আবেগ নিয়ন্ত্রণে রেখে ভারতকে নেতৃত্ব দিতে চাই। টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে আমার ব্যক্তি-দর্শন এমনই’Ñ স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেন কোহলি। ধোনি যেকোন পরিস্থিতিতে মাথা ঠা-া রেখে সেরাটা বের করে আনতে পারেন। তার নেতৃত্বে ভারত ওয়ানডে-টি২০সহ সব বৈষয়িক শিরোপা জেতে।

মেজাজি হলেও টেস্টের সাবেক সতীর্থের প্রশংসা করতে ভোলেননি বিরাট। ‘ধোনি দীর্ঘ পরিসরের টেস্টেও আলাদা ছাপ রেখে গেছে। পরিসংখ্যানেও ভারতের সফলতম অধিনায়ক ও। ওর জন্য অনেক ক্রিকেটার প্রচুর সুযোগ পেয়েছে। তরুণদের প্রতি বরাবরই ওর সমর্থন ও আস্থাটা ছিল দেখার মতো। এটা সবচেয়ে বড় ব্যাপার। একটা বিষয় দেখেছি, ধোনি সহজে দলে ব্যাপক পরিবর্তন আনতে চাইত না। ওর সাফল্যের এটাও বড় কারণ। প্রত্যেক সদস্যের সঙ্গে সখ্য গড়ে তুলত। ব্যক্তিগতভাবে আমার ক্যারিয়ারের এই পর্যায়ে ধোনির অবদান স্বীকার করি। সবচেয়ে বেশি ভাল লাগত, ক্ষমতা থাকার পরও ও নবীনদের ওপর খবরদারি ফলায় না। এটা এক কথায় অসাধারণ।’

বাংলাদেশ সফরে ভারতের প্রধান কোচ করা হয়েছে রবি শাস্ত্রীকে। পাশিপাশি এখন থেকে ক্ষমতাধর ক্রিকেট পরাশক্তি দেশটির পরামর্শক হয়ে কাজ করবেন তিন সাবেক গ্রেটÑ শচীন টেন্ডুলকর, সৌরভ গাঙ্গুলি ও ভিভিএস লক্ষণ। এসবকে নিজেদের ক্রিকেটের ভবিষ্যতের জন্য ইতিবাচকভাবেই দেখছেন সেনসেশনাল কোহলি। বিশেষ করে শাস্ত্রীতে মুগ্ধতার শেষ নেই তার। ‘শাস্ত্রী হচ্ছেন সেই মানুষ, যিনি কখনই দায়িত্ব নিতে পিছপা হন না। যেকোন পরিস্থিতিতে সামনে তাকাতে পছন্দ করেন। তিনি কখনও দুই রকমের চিন্তা করেন না। একজন অসাধারণ মানুষ। সবাই তাকে সম্মান করেন। তার মতো একজনকে স্থায়ীভাবে পেলেও মন্দ হবে না!’