২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

গৃহবধূর দাঁত ভেঙ্গে চুল কেটে দিল দুর্বৃত্তরা


স্টাফ রিপোর্টার, বগুড়া অফিস ॥ এক গাঁয়ের বধূকে গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে দাঁত ভেঙ্গে বেধড়ক পিটিয়ে শরীর জখম করে মাথার চুল কেটে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। নির্মম নির্যাতনের এ ঘটনা ঘটেছে বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার সুজাইতপুর গ্রামে। লাঞ্ছিত ও আহত এই নারী বর্তমানে শিবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। তার নাম পিয়ারা বেগম (৩৫)। বাড়ি শিবগঞ্জের বৈরাহাট নয়া পাড়ায়। এ ঘটনায় শিবগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের হলে পুলিশ রবিবার রাতে সুজাইতপুর গ্রামের মমেনা বেগম ও শাহ আলম নামের দুই সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছে। স্থানীয় সূত্র জানায় স্বামী ১ ছেলে ১ মেয়ে নিয়ে পিয়ারা বেগমের সংসার। স্বামী হেলাল সরকার গ্রামীণ সড়কে শ্যালো ইঞ্জিন চালিত যান (ভটভটি নামে পরিচিত) চালিয়ে সংসার চালায়। কিছুদিন আগে পিয়ারা বেগমের কাছ থেকে তার ফুপু সুজাইতপুরের মমেনা বেগম কিছু টাকা ধার নেয়। এই টাকার জন্য পিয়ার বেগম ফুপুকে অনেকবার বলেছে। একপর্যায়ে ফুপু মমেনা পিয়ারকে টাকা নেয়ার জন্য সুজাইতপুর যেতে বলে। সুজাইতপুর গেলে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী এলাকার কয়েক দুর্বৃত্তের হাতে পিয়ারাকে তুলে দেয় ফুপু। চিৎকার চেঁচামেচিতে যখন গ্রামের লোক এগিয়ে আসে তখন পিয়ারার নামে অপবাদ দিয়ে তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে বেধড়ক পেটায় প্রভাবশালী ব্যক্তির লালিত সন্ত্রাসীরা। পিয়ারার দাঁত ভেঙ্গে যায়। গোটা শরীরে লাঠিপেটা করায় জখম হয়। এর মধ্যে মাথার চুল কেটে শিবগঞ্জ পঠিয়ে দেয়। বুধবার রাতে তাকে শিবগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনাটি যেন জানাজানি না হয় এজন্য প্রভাবশালীরা নানা পন্থা নেয়। রবিবার পিয়ারার স্বামী হেলাল উদ্দিন শিবগঞ্জ থানায় সুজাইতপুরের মিন্টু, শাহ আলম মমেনা বেগমসহ কয়েকজনের নাম উল্লেখ করে মামলা করে।