১৯ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

অর্থনৈতিক উন্নয়নে পুঁজিবাজার বড় ভূমিকা রাখবে


অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে পুঁজিবাজার বড় ভূমিকা রাখবে। এক সময় পুঁজিবাজারে ভীতিকর পরিস্থিতি থাকলেও এখন আর এই পরিস্থিতি তৈরির কোন সম্ভাবনা নেই। অর্থাৎ বুদ্বুদ বা বাবল তৈরির সম্ভাবনা কম। বাজার এখন স্থিতিশীল পর্যায়ে রয়েছে। বর্তমানে বিভিন্ন আইন ও বিধিমালা সংস্কারের কারণে বাবল তৈরির সুযোগ প্রায় রহিত হয়ে গেছে। তবে পুরোপুরি রহিত হয়েছে সেটা বলা যাবে না, আরও কয়েক বছর পরে তা বলা যাবে।

বৃহস্পতিবার সকালে সচিবালয়ে ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) সরকারী শেয়ারের লভ্যাংশের চেক হস্তান্তরের অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। অর্থমন্ত্রীর অতীতের পুঁজিবাজারের সমালোচনা করে বলেন, আগে পুঁজিবাজার ছিল না। আমার মতে সেটা ছিল ফটকা বাজার। গত ৫ বছরে নানা সংস্কারের মধ্য বাংলাদেশে এখন একটা পুঁজিবাজার হয়েছে। তিনি আরও বলেন, পুঁজিবাজারের উন্নয়নেই আইসিবি গঠন করা হয়েছিল। পুঁজিবাজারের আচরণ যাতে ভাল থাকে সেদিকে আইসিবিকে নজর রাখতে হবে। তিনি বলেন, পুঁজিবাজারের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে, পুঁজির সংস্থান করা। আমাদের এখানে ব্যাংকগুলো এটা করে কিন্তু এটা তাদের দায়িত্ব নয়।

আইসিবির চেয়ারম্যান ড. মজিব উদ্দিন আহমেদ বলেন, আইসিবি এখন একটি শক্তিশালী প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে আইসিবি ভূমিকা রাখছে। প্রতিবছরই এর মুনাফা বাড়ছে। এবার আমরা সরকারকে গত বছরের চেয়ে প্রায় ৬ কোটি টাকা অধিক মুনাফা দিয়েছি। মোঃ ফায়েকুজ্জামান বলেন, পুঁজিবাজারের উন্নয়নে প্রোডাক্ট ডাইভারসিফিকেশনসহ আইসিবি কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। পুঁজিবাজারে পুনঃঅর্থায়নে সরকার ৯শ’ কোটি টাকার যে তহবিল দিয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংক সেটা তদারকি করছে। এই তহবিলের দায়িত্ব আইসিবির হাতে ন্যস্ত করা এবং আইসিবি কর্তৃক ‘মার্কেট মেকিং ফান্ড’ গঠনে সরকারের সহায়তা কামনা করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে আইসিবির চেয়ারম্যান ড. মজিব উদ্দিন আহমেদ ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ ফায়েকুজ্জামান ২০১৩-১৪ অর্থবছরে সরকারী শেয়ারের লভ্যাংশ বাবদ ৫১ কোটি ২৫ লাখ ৭৮ হাজার টাকার চেক অর্থমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন।

উল্লেখ্য, আইসিবিতে সরকারের ২৭ শতাংশ শেয়ার রয়েছে। শেয়ার সংখ্যা হচ্ছে ১ কোটি ১৩ লাখ ৯০ হাজার ৬২৫টি।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: