২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ঢামেকে রোগীর মেয়ের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক ॥ এক আনসারের বিরুদ্ধে মামলা


স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ঢাকা মেডিক্যালে এক রোগীর মেয়ের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের অভিযোগে হাসপাতালের এক আনসার সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

শাহবাগ থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক জানান, শুক্রবার রাতে মামলায় বকুল সরকার (২৫) নামের ওই আনসার সদস্যকে আসামি করা হয়েছে। তিনি ঢামেক হাসপাতালে কর্মরত ছিলেন। তার বাবার নাম আব্দুর রাজ্জাক সরকার। বাড়ি বগুড়া গাবতলী উপজেলার তালাইহাটা গ্রামে। ওসি জানান, ভিকটিম বর্তমানে পুলিশ হেফাজতে। শনিবার সকালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য তাকে ঢামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ভিকটিম জানান, গত ২৫ এপ্রিল পেটের ব্যথাসহ কিছু জটিলতা নিয়ে ঢাকা মেডিক্যালে ভর্তি হন গাজীপুরের বাসিন্দা হাফিজ উদ্দিন (৪৭)। হাসপাতালের ২১৯ নম্বর ওয়ার্ডের ৩ নম্বর বেডে তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন। রুমী দিনরাত হাসপাতালে অবস্থান করে বাবার দেখভাল করছিলেন। তাদের গ্রামের বাড়ি পঞ্চগড় জেলায়। ১৬ মে তার বাবার অপারেশন করা হয়। এ সময় অপারেশন থিয়েটার (ওটি) গেটের সামনে কর্তব্যরত ছিলেন বকুল সরকার। ভিকটিম জানান, পরিচয়ের সূত্র ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তাকে তিনবার ধর্ষণ করেন বকুল সরকার। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে আনসার সদস্য বকুল জানান, তিনি নন; তার দুই সহকর্মী ওই তরুণীর সঙ্গে সম্পর্ক করেছেন। তিনি জানান, আমার সহকর্মী কামাল ও হেলাল মেয়েটির সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করার পর আমাকে এর সঙ্গে জড়াচ্ছে।

অভিযুক্ত বকুল জানান, গত বুধবার মধ্যরাতে তারা মেয়েটিকে আমার কক্ষে ঢুকিয়ে বাইরে দিয়ে তালা মেরে দিয়েছিল। তিনি বলেন, সহকর্মী কামাল, হেলাল ও মেয়েটি বিবাহিত। মেয়েটির দুটি সন্তানও রয়েছে। আমি অবিবাহিত বিধায় তারা আমার সঙ্গে মেয়েটিকে জড়িয়ে দিতে চাইছে। ঢামেক হাসপাতালের প্লাটুন কমান্ডার (পিসি) কিরণ আলী জানান, রোগীর ওই মেয়েটি বিষয়টি তাকে অবহিত করেন। এ সময় তাদের বিয়ে দেয়া হবে বলে বকুল সরকারকে জানিয়ে দেওয়া হয়। এর পর গোপনে ঢামেক হাসপাতাল ছেড়ে চলে যায় বকুল সরকার। শাহবাগ থানার পরিদর্শক (তদন্ত ) জাফর আলী জানান, রুমী আখতার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে দায়িত্বরত আনসার সদস্য বকুলের বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করেছেন। তাকে গ্রেফতারের প্রক্রিয়া চলছে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: