২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

যাত্রাবাড়ীতে ভাড়াটেবেশে ডাকাতরা খুন করল বাড়িওয়ালার মেয়েকে


স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে ভাড়াটিয়াবেশী ডাকাত দল একটি বাড়িতে ঢুকে বাড়িওয়ালার মেয়েকে শ্বাসরোধে হত্যা করে টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে গেছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, শনিবার ভোররাতে যাত্রাবাড়ীর বিবিরবাগিচা এলাকায় একটি তৃতীয়তলা ভবনের দোতলায় শুধু ডাকাতিই নয়, গৃহকর্তার মেয়েকে খুন করে ৫০ হাজার টাকা ও ৫ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে গেছে দুর্ধর্ষ ডাকাতরা। মেয়েটির নাম সৈয়দা সাদিকুন নাহার নিগার (৩৫)।

জানা গেছে ভাড়াটেবেশী ডাকাতরা কৌশলে নিচ তলায় ভাড়া নেয়। শনিবার ভোররাতে বিবিরবাগিচার ৭৬/১/২/১৩ নম্বরে প্রান্তিক নামে বাড়িটি অবসরপ্রাপ্ত চাকুরে এসএম কামরুজ্জামানের। তিনি বাড়ির দোতলায় স্ত্রী ও মেয়ে নিগারকে নিয়ে থাকেন। এই দম্পতির আরও দুটি সন্তান একটি মেয়ে ও একটি ছেলে রয়েছে। পরিবারের বরাত দিয়ে যাত্রাবাড়ীর এসআই জসিমউদ্দীন জানান, গত বৃহস্পতিবার ছাত্র পরিচয়ে দুই যুবক ওই ভবনের একতলা ভাড়া নেয়। শুক্রবার রাতে তারা বাসায় কোনো মালপত্র কেনা হয়নি জানিয়ে ভবনের তৃতীয় তলার এক ভাড়াটিয়ার ঘরে রাত কাটায়। এসআই জসিমউদ্দিন জানান, রাত এগারোটার দিকে নিজেদের ঘরে সিলিং ফ্যান লাগাতে চেয়ার লাগবে জানিয়ে দোতলায় বাড়িওয়ালা কামরুজ্জামানের দরজার কড়া নাড়ে ওই দুই যুবকসহ ৫-৭ জন। দরজা খোলার সঙ্গে সঙ্গে যুবকরা ঘরে ঢুকে অস্ত্রের মুখে বাড়ির সবার হাত-পা ও মুখ বেঁধে ফেলে। এ সময় বাড়িওয়ালার মেয়ে নিগার বাধা দিতে গেলে অস্ত্রধারী যুবকরা তাকে বেঁধে তোষক দিয়ে পেঁচিয়ে রাখে। এতে নিগার শ্বাসরোধে মারা যায়। দুর্বৃত্তরা পরে আলমারি খুলে ৫০ হাজার টাকা ও ৫ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, দুটি ল্যাপটপ ও তিনটি মোবাইলসহ মূল্যবান মালামাল লুট করে পালিয়ে যায়। ভোরের দিকে বাড়িওয়ালা কামরুজ্জামানের স্ত্রী কৌশলে হাতের বাঁধন খুলে প্রতিবেশীদের খবর দিলে তারা পুলিশকে জানান। পরে পুলিশ নিগারের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ (মিটফোর্ড) মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠায়। এসআই জসিমউদ্দিন জানান, নিহত নিগার কয়েক বছর আগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর পরীক্ষা শেষ করেছিলেন। মানসিকভাবে অসুস্থ হওয়ায় তিনি বাবা-মার সঙ্গেই থাকতেন। ডাকাত দলটিকে ধরার চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

চোর সন্দেহে পিটিয়ে হত্যা ॥ একইদিন দুপুরে উত্তরার আদম আলী মার্কেট সংলগ্ন রেললাইন বস্তিতে মোবাইল সেট চোর সন্দেহে পারভীন আক্তার (৩০) নামে এক নারীকে পিটিয়ে হত্যা করেছে বস্তির তিন বাসিন্দা। এ ঘটনায় ঢাকা রেলওয়ে পুলিশ দু’জনকে আটক করেছে। ঢাকা রেলওয়ে পুলিশের উপ-পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম জানান, শুক্রবার দুপুর বারোটার দিকে মোবাইল চোর সন্দেহে ওই নারীকে মারধর করে বস্তির বাসিন্দা নাসির, শফিকুর ও আলো নামের এক নারী। মারধরের এক পর্যায়ে পারভীন অচেতন হয়ে পড়ে। পরে বস্তির ওই তিন বাসিন্দা পারভীনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে নিয়ে যায়। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি জানান, জড়িতরা পরে ঘটনাটি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য পারভীনের লাশটি ওই এলাকার রেললাইনের ওপর ফেলে রেখে যায়। উত্তরা থানা পুলিশ বিষয়টি টের পেয়ে রেল পুলিশকে জানায়। খবর পেয়ে রেলওয়ে থানা পুলিশ শুক্রবার গভীররাতে পারভীনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক মর্গে পাঠায়। শনিবার সকালে তার লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে বলে ঢাকা রেলওয়ে পুলিশের এসআই রফিকুল ইসলাম জানান। তিনি জানান, পারভীন হত্যাকা-ের ঘটনায় বস্তির বাসিন্দা শফিকুর ও আলোকে আটক করা হয়েছে। নিহত পারভীন একই বস্তির বাসিন্দা ও স্বামী পরিত্যক্তা।

সড়ক দুর্ঘটনায় যুবক নিহত ॥ শনিবার সকালে রাজধানীর মেরুল বাড্ডা মাছ বাজারের সামনের রাস্তায় বাসচাপায় মোঃ সেলিম (৩০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। নিহতের বাবার নাম নূর ইসলাম। বাড়ি নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও থানার মুগরাপাড়া গ্রামে। তিনি গুলশানের কালাচাঁদপুর এলাকায় পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকতেন। নিহতের দুলাভাই নান্নু মিয়া জানান, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে সেলিমের মাছের আড়ত আছে। সেই আড়ত তিনি ভাড়া দিয়েছিলেন। সকালে গুলশানের কালাচাঁদপুরের বাসা থেকে মোটরসাইকেলে করে নারায়ণগঞ্জের উদ্দেশে রওনা হন সেলিম। সাড়ে ৮টার দিকে মেরুল বাড্ডায় এলে একটি বাস তার মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয়। পরে সেলিমকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালের জরুরী বিভাগে আনা হয়। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মোজাম্মেল হক জানান, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ছিনতাই ॥ শুক্রবার গভীররাতে রাজধানীর মালিবাগ সুপারমার্কেটের সামনে ছিনতাইকারীরা তানিম আহমেদ (২২) ও মামুন হোসেন (২৫) নামে দুই যুবককে কুপিয়ে মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিয়েছে। পরে পথচারীরা তাদেরকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করে। আহত তানিম খিলখাঁওয়ের বোরহান এলাকার বাসিন্দা ও খিলগাঁও মডেল কলেজের ছাত্র। মামুন মগবাজারের টিএ্যান্ডটি কলোনিতে থাকেন। আহত তানিম জানান, মোটরসাইকেল চালিয়ে খিলগাঁও যাওয়ার সময় মালিবাগ সুপারমার্কেটের সামনে এলে খিলগাঁও এলাকার জাকির, বিল্লালসহ কয়েকজন তাদের কুপিয়ে মোটরসাইকেল নিয়ে যায়। পরে তাদের আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হাসপাতালে যুবককে কুপিয়েছে ॥ শুক্রবার গভীররাতে রাজধানীর মুগদা জেনারেল হাসপাতালের নবম তলায় দুর্বৃত্তরা শিমুল হোসেন (১৯) নামে এক যুবককে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে আহত অবস্থায় শিমুলকে প্রথমে মুগদা হাসপাতালে ও পরে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মুগদা থানার উপ-পরিদর্শক ফরহাদ আলী জানান, শিমুল বাসাবোর কমিশনার গলিতে থাকেন। একই এলাকার রিফাত ও মজনু নামের দুই যুবক তাকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ডেকে আনেন মুগদা হাসপাতালের নবম তলায়। এরপর ওই যুবকরা শিমুলের পেটে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়।

ঢামেক হাসপাতালের সামনে মদের বোতলসহ আটক চার ॥ শনিবার বিকেলে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নতুন ভবনের গেটের সামনের রাস্তার একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা থেকে ১০ বোতল মদসহ একই পরিবারের চারজন আটক করেছে ডিবি পুলিশ। আটককৃতরা হচ্ছে হাবিব (৩০), তানমিম (২২), মাসুদ (৩০) ও তার পাঁচ বছরের ছেলে ইদন জিদান। ডিবি ধানম-ি জোনের পরিদর্শক রবিউল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার বিকেল ৩টার দিকে হাসপাতালে ওই স্থান থেকে তাদের আটক করা হয়েছে। মদভর্তি লাগেজটি এখনও খোলা হয়নি। তবে আটকরা জানিয়েছে লাগেজটির মধ্যে ১০ বোতল বিদেশী মদ রয়েছে। মদভর্তি লাগেজটি কোথা থেকে আনা হয়েছে এ ব্যাপারে আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

কমলাপুর স্টেশনে ইয়াবাসহ দুই যুবক গ্রেফতার ॥ শনিবার দুপুরে রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে চারশ’ পিস ইয়াবাসহ নুর হোসেন (২১) ও নুর আলম (২০) নামে দুই যুবককে গ্রেফতার করে রেলওয়ে পুলিশ। রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল মজিদ জানান, শনিবার বেলা একটার দিকে কমলাপুর রেলস্টেশনে চট্টগ্রাম থেকে আগত চট্টলা এক্সপ্রেস থেকে তাদের আটক করা হয়। পরে তাদের দেহ তল্লাশি চালিয়ে চারশ’ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনা থানায় মামলা হয়েছে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: