২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

হত্যা-সন্ত্রাসের রাজনীতি বিএনপি-জামায়াতই শুরু করেছে : নৌ পরিবহন মন্ত্রী


নিজস্ব সংবাদদাতা, টাঙ্গাইল ॥ নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান বলেছেন, যারা গণতন্ত্রের নামে গণহত্যা করে তাদের কাছে গণতন্ত্র আশা করা যায় না। তারা যদি ক্ষমতায় আসে তাহলে বাংলাদেশে খুনীতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হবে, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হবে না। যারা নিরীহ মানুষকে হত্যা করে এবং বোমা মারে তাদের মুখে গণতন্ত্র মানায় না। তারা গণতন্ত্রের নামে দেশকে হত্যা করতে চায়। তাই ঐ খুনী চক্রকে প্রতিহত করতে আমাদের সকলকে উজ্জিবিত হতে হবে, আমাদের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। বাংলাদেশে হত্যা-সন্ত্রাসের রাজনীতি বিএনপি-জামায়াতই শুরু করেছে। তাই তাদের ঝেটিয়ে বিদায় করলেই বাংলাদেশ পাপমুক্ত হবে। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর এদেশের অর্থনৈতিক কোন উন্নয়ন হয়নি। গত ছয় বছরে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের সরকার দেশের যে উন্নয়ন করেছে তা আজ সারা পৃথিবীর কাছে মডেল হয়ে দাঁড়িয়েছে।

মন্ত্রী আজ শুক্রবার দুপুরে জনতার অভিযাত্রার অংশ হিসেবে টাঙ্গাইল নতুন বাস টার্মিনালে মালিক-শ্রমিক-কর্মচারী-পেশাজীবি ও মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

টাঙ্গাইল জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতি আয়োজিত সমাবেশে মন্ত্রী আরও বলেন, বিএনপি সরকারে থাকা সময়ে শ্রমিক ও গার্মেন্ট শ্রমিকরা বিভিন্ন দাবিতে রাজপথে নেমেছিল। সে সময় গুলি করে তাদের হত্যা করা হয়েচে। সবসময় তারা শ্রমিকদের উপর জুলুম, নির্যাতন ও হত্যা করেছে। হরতাল অবরোধের নামে বিএনপি-জামায়াত পেট্টোল বোমা হামলা চালিয়ে বহু মানুষকে হত্যা করেছে। হাজার হাজার পরিবহন পুড়িয়ে ধ্বংস করে দিয়েছে। তাদের এ অব্যাহত সন্ত্রাসের প্রতিবাদে আমরা বিভিন্ন শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করেছি। এতে সকল শ্রেণী পেশার মানুষ অংশ নিয়েছিল। খালেদা জিয়া সারাদেশে ৯২ দিন খুন, সন্ত্রাস, নাশকতা, পেট্টোল বোমা হামলা চালিয়ে পরাজিত হয়ে বাসায় ফিরে গেছে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশের জনগন তাদের বিচার করবে।

টাঙ্গাইল জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি কামরুজ্জামান খানের সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শিরিন আক্তার এমপি, টাঙ্গাইল জেলা পরিষদের প্রশাসক ফজলুর রহমান খান ফারুক, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক ওসমান আলী, জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির কার্যকরি সভাপতি খন্দকার নাজিম উদ্দিন আহমেদ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জহুরুল হক ডিপ্টি, জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সম্পাদক মীর লুৎফর রহমান লালজু প্রমুখ।

সমাবেশে সড়ক পরিবহনের মালিক-শ্রমিক-কর্মচারী-পেশাজীবি ও মুক্তিযোদ্ধা জনতা উপস্থিত ছিলেন।