২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

নেপালে ভূমিকম্পে বিধ্বস্তদের বাড়ি তৈরিতে ঢাকার আগ্রহ


বাংলা নিউজ ॥ ভূমিকম্পে বিধ্বস্ত নেপালে ক্ষতিগ্রস্তদের ঘরবাড়ি তৈরিসহ আরও সহায়তা করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ।

নেপাল কংগ্রেসের সভাপতি ও দেশটির প্রধানমন্ত্রী সুশীল কৈরালার সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলার সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার এ আগ্রহের কথা জানান। ভূমিকম্পের পর বাংলাদেশের পক্ষ থেকে নেপালের জন্য উদার হাত বাড়িয়ে দেয়া এবং নানামাত্রিক সহায়তা করে যাওয়ায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান। বৃহস্পতিবার (২১ মে) প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে এসে বক্তব্যের এক পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা জানান। বুধবার (২০ মে) নেপালের প্রধানমন্ত্রী সুশীল কৈরালার সঙ্গে শেখ হাসিনার টেলিফোনে কথা হয়।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের এক পর্যায়ে ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত নেপালের কথা উঠে আসে। তখনই তিনি এসব কথা বলেন।

ইতোমধ্যে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে নেপালকে দেয়া সহায়তার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, গতকাল (বুধবার) নেপালের প্রধানমন্ত্রী সুশীল কৈরালার সঙ্গে আমার টেলিফোনে কথা হয়েছে। আমি নেপালের প্রধানমন্ত্রীকে বলেছি- কী প্রয়োজন আপনাদের। সেখানে যেটা প্রয়োজন সেটা হলো সামনে বর্ষাকাল শুরু হয়ে যাচ্ছে। প্রচুর বৃষ্টি হয় দেশটিতে। এখন যারা তাঁবুতে আছেন বা খোলা আকাশের নিচে বাস করছেন তাদের জন্য সত্যি এটি দুশ্চিন্তার বিষয়।

নেপালকে আরও সহায়তা করতে আগ্রহ প্রকাশ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমি ওনাকে বলেছি- আমরা তাদের জন্য বেড়ার ঘর নির্মাণ করে দিতে পারি। এ ব্যাপারে আমাদের সশস্ত্রবাহিনী অভিজ্ঞ। আপনারা চাইলে আমরা টিনসহ যা যা দরকার পাঠাতে পারি। সেখানে আমরা ঘরবাড়ি তৈরি করে দিয়ে আসতে পারি। সে সুযোগ আমাদের আছে।

‘আমরা আরও চাল পাঠাতে পারি। প্রয়োজনে ১ লাখ টন চাল পাঠাতে পারব। সে সক্ষমতাও আছে’- বলেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, প্রতিবেশীর প্রতি বন্ধুত্বসুলভ আচারণই সবচেয়ে বড় কথা।

স্থলপথে চাল পাঠানোর ক্ষেত্রে সুযোগ করে দেয়ার জন্য এ সময় ভারতকেও ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ভূমিকম্প দুর্গতদের সহায়তার জন্য বাংলাদেশ সরকারের পাঠানো ১০ হাজার টন চাল ইতোপূর্বে নেপালে পৌঁছেছে। তারও আগে বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর একটি মেডিক্যাল টিম সেখানে চিকিৎসা সেবা দিয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশ দিয়েছে শুকনা খাবার, বিশুদ্ধ পানিসহ নানামাত্রিক সহায়তা।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: