১৯ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

মোবাইল উদ্বার করতে গিয়ে সাংবাদিকসহ তিন ভাইয়ের মৃত্যু


পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি,খাগড়াছড়ি॥ খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে টয়লেটের গর্তে পড়ে যাওয়া একটি মোবাইল ফোন তুলতে গিয়ে টয়লেটের বিষক্রিয়ায় স্থানীয় ভোরের কাগজের প্রতিনিধিসহ তিন ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় তাদের উদ্ধার করতে গিয়ে আরও দুই প্রতিবেশী অসুস্থ হয়ে পড়েছে।

রবিবার দিবাগত রাত ১২ টার দিকে মহালছড়ি উপজেলার দূর্গম মনারটেক গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। নিহত অপর দুই ভাইয়ের নাম হেভেন্তু চাকমা (৩৫) ও উভেন্টু চাকমা (৩২)।এ ঘটনায় মহালছড়ি উপজেলার মনারটেরেক পুরো গ্রাম চলছে এখন শোকের মাতম। মহালছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ সেমায়ুন কবির মহালছড়ি স্বাস্থ্য কম্েপ্লক্সের বরাত দিয়ে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী বিনয় স্মৃতি চাকমা জানান,রাত পৌনে ১২ টার দিকে উভেন্টু চাকমা বাড়ী পাশে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গেলে হাত ফসকে তার মোবাইল ফোনটি টয়লেটে পড়ে যায়। তিনি মোবাইলটি উদ্বার করার জন্য স্ল্যাপ উল্টে রশি বেয়ে নীচে নামলে বিষক্রিয়ায় অজ্ঞান হয়ে যান। ছোট ভাইয়ের আসতে দেরী দেখে অপর দুই টয়লেটে গিয়ে দেখে ছোট ভাই অজ্ঞান হয়ে টয়লটের নীচে পড়ে আছে। ছোট ভাইকে উদ্বার করতে প্রদীপ শশী চাকমা ও হেভেন্টু চাকমা টয়লেটের নীচে নামলে তারা বিষক্রিয়ায় জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এ অবস্থায় প্রতিবেশীরা তিন জনকে উদ্বার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষনা করেন। তিন ভাইকে উদ্বার করতে গিয়ে রিপন চাকমা(২০) বাবলুক চাকমা(২২) নামে আরো দু’জন প্রতিবেশী গ্যাসের বিষক্রিয়ায় অসুস্থ্য হন।

প্রতিবেশী রতœ উজ্জল চাকমা জানান, তারা খবর পেয়ে গর্ত থেকে তিন ভাইসহ পাঁচ জনকে উদ্বার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তিনজনকে মৃত ঘোষনা করেন। তিনি বলেন, তিন ভাইয়ের মৃত্যুতে শুধু পরিবারের নয়, এলাকার অপুরনীয় ক্ষতি হয়েছে।

মহালছড়ি হাসপাতালে মেডিকেল অফিসার ডাক্তার তানজিল ফরহাদ জানান, রাত সোয়া ১২টার দিকে পর পর পাঁচজনকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরীক্ষা করে দেখা গেছে তিনজন আগেই মারা গেছেন। হাসপাতালে আরো দু’জন ভর্তি আসেন। তাদের অবস্থা উন্নতির দিকে।