২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৭ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

বগুড়ায় স্কুলছাত্রীর ওপর অমানবিক আচরণের অভিযোগ


স্টাফ রিপোর্টার, বগুড়া অফিস ॥ বগুড়া বিয়াম মডেল স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষর বিরুদ্ধে উম্মে হাবিবা ঐশি (১৩) নামে এক অসুস্থ ছাত্রী ও তার পরিবারের সঙ্গে অমানবিক আচরণের অভিযোগ উঠেছে। স্কুলে এক দুর্ঘটনায় আহত হওয়ার পর চিকিৎসার আওতায় থাকা ওই ছাত্রীকে স্কুল ছাড়তে বাধ্য করা হয়েছে। তবে অধ্যক্ষ তা অস্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় ছাত্রীটি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে বলে তার পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। তিন বছর আগে পঞ্চম শ্রেণীতে অধ্যয়নরত অবস্থায় স্কুলে ঐশি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। স্কুল ভবনের ৪র্থ তলা থেকে গ্লাসসহ জানালা তার মাথায় পড়লে সে গুরুতর আহত হয়। ওই সময় সে স্কুলবাসে উঠছিল। বগুড়া ও ঢাকায় দীর্ঘ চিকিৎসার পর সুস্থ হলেও এখনও সে চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে রয়েছে। ঐশি এখন ৮ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। তার বাবা হুমায়ুন কবির জানিয়েছেন, স্কুল অধ্যক্ষর অব্যবস্থাপনার কারণেই দুর্ঘটনাটি ঘটেছিল। ঐশির চিকিৎসার জন্য ৫ লক্ষাধিক টাকা ব্যয় হয়। দুর্ঘটনার পর অধ্যক্ষ চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যয় মেটানোর আশ্বাস দিয়েছিলেন। তবে বাস্তবে স্কুল থেকে মাত্র ৫০ হাজার টাকার চিকিৎসা সহায়তা দেয়া হয়। ঐশির পরিবার চিকিৎসার পুরো টাকা দাবি করায় তাদের ওপর অধ্যক্ষ ক্ষুব্ধ হন বলে বলে ঐশির বাবা ও মা শনিবার এক সংবাদ সন্মেলনে অভিযোগ করেন। তাদের আরও অভিযোগ, ক্ষতিপূরণ চাওয়ায় নানাভাবে তাদের সন্তানকে স্কুলে মানসিক নির্যাতনের মুখে পড়তে হয়েছে। তবে বিয়াম মডেল স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন স্কুলে ঐশির ওপর কোন মানসিক নির্যাতন করা হয়নি। তার পরিবারই ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে স্কুল থেকে ছাড়পত্র নিয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

ফতুল্লায় সেফটিক ট্যাঙ্ক বিস্ফোরণে আহত ৫

নিজস্ব সংবাদদাতা, সিদ্ধিরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, ১৬ মে ॥ ফতুল্লার কাশীপুর এলাকায় একটি মার্কেট ভবনের সেফটিক ট্যাঙ্ক বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এতে মানিক (১৩), ফজলু (৩৫), সাব্বির (১৬), কামরুন নাহার (৩০) ও মনির হোসেন (৪০) নামে ৫জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে মানিককে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় ভোলাইল গেদ্দেরবাজার এলাকায়।

জানা গেছে, ভোলাইল গেদ্দেরবাজার এলাকার মোল্লা বিল্লালের ৪ তলা মার্কেট ভবনের নিচ তলায় সেফটিক ট্যাঙ্কে আকস্মিকভাবে বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়। এ সময় মানিক, ফজলু, মনির হোসেন, সাব্বির ও গৃহবধূ কামরুন তারা আহত হয়।