২২ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

সালাহউদ্দিন দুই আত্মীয়কে যা বললেন-


বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন আহমেদের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়া তার দুই আত্মীয় জানিয়েছেন, তাকে চোখ বাঁধা অবস্থায় কয়েকবার গাড়ি বদল করে শিলং নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। চোখ খোলার পর তিনি বুঝতে পারেননি কোথায় এসেছেন। শিলংয়ে চোখ বেঁধে নামিয়ে দেয়ার পর তিনি স্থানীয়দের জিজ্ঞেস করে জানতে পারেন শিলংয়ে আছেন। তখন তিনি নিজে নিজেই পুলিশের কাছে গিয়ে নিজের পরিচয় দেন। এর আগেও গত দুই দিন শিলং পুলিশের তরফ থেকে দাবি করা হচ্ছিল স্থানীয় লোকজন সালাহউদ্দিন আহমেদকে উ™£ান্তের মতো ঘুরতে দেখে থানায় খবর দেয়ার পর পুলিশ তখন তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে মানসিক হাসপাতালে নিয়ে যায়।

মেঘালয় সিভিল হাসপাতালে বন্দী সালাউদ্দিনের সঙ্গে তার যে দুইজন আত্মীয়কে বৃহস্পতিবার দেখা করার অনুমতি দিয়েছিলন তাদেরই একজন কলকাতার বাসিন্দা। আইয়ুব আলী বিবিসি বাংলাকে বলেন, সালাহউদ্দিন আহমেদের জন্য কিছু পোশাক ও খাবার দিতে গেলে বেশ কিছুক্ষণ কথাও হয়েছে। বিবিসিকে আইয়ুব আলী বলেন, উনি শারীরিকভাবে ভাল আছেন। খারাপ নেই।

তিনি শিলংয়ে কিভাবে পৌঁছলেন। এর উত্তরে তিনি বলেন, উনি যেটা বললেন, বুঝতে পারেনি। কিভাবে এসেছেন বলতে পারছেন নাÑ এটাই বলছেন। আর মুখে কাপড় বেঁধে নিয়ে এসেছেন। তাকে প্রশ্ন করা হয় কত দিন ধরে বন্দী ছিলেন? উত্তরে আইয়ুব আলী বলেন, প্রায় ৬২ দিনের মতো হবে। তাকে কি একটানাই গাড়িতে আনা হয়েছিল। উত্তরে বলেন, না সেটা উনি কিছু বলতে পারেননি। গাড়ি বদল করা হয়েছিল কিনা, উত্তরে বলেন হ্যাঁ। যখন প্রথম বুঝতে পারলেন শিলং, তারপর কী হলো। উত্তরে জানান, নিজে থেকে থানায় গিয়ে বলেছেন, আমি বাংলাদেশের মন্ত্রী ছিলাম। আমি কিভাবে এসেছি বলতে পারব না। এটুকুই বলেছে। কারা অপহরণ করেছিল, উত্তরে বলেন তিনি চিনতে পারেননি। ৬২ দিন টানা মুখে কাপড় বাঁধা ছিল কিনা, তার উত্তরে ডিটেল্স বলেননি তিনি। এদিকে বিবিসি আরও জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার প্রথমবারের মতো দুইজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা সালাহউদ্দিনকে জেরা করেছেন। তবে কী কথা হয়েছে, তা প্রকাশ করা হয়নি। সূত্র : বিবিসি।