২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

থাইল্যান্ডের জঙ্গলে গণকবরে জাতিসংঘের উদ্বেগ


স্টাফ রিপোর্টার ॥ সাগর পথে মানবপাচার ও থাইল্যান্ডের জঙ্গলে গণকবরের ঘটনায় জাতিসংঘ উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর সংবাদ সম্মেলন করে এই উদ্বেগের কথা জানিয়েছে। শুক্রবার জেনেভায় এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

ইউএনএইচসিআরের এক প্রতিবেদনে, মানব পাচারের ভয়াবহ চিত্র তুলে ধরার পর জাতিসংঘ সদরদফতরে মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক নিয়মিত ব্রিফিংয়ে বলেন, বঙ্গোপসাগর দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ মানবপাচারের ঘটনা আগের বছরের তুলনায় এ বছরের মার্চ পর্যন্ত তার দ্বিগুণ হয়েছে। থাই জঙ্গলের ওই শিবিরগুলো পাদাং বেসারের চারপাশের কৃষি এলাকাগুলো মানবপাচারের আঁখড়া বলে প্রতিবেদনে জানিয়েছে ইউএনএইচসিআর। শুক্রবার জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে ইউএনএইচসিআর’র মুখপাত্র অ্যাড্রিয়ান এ্যাডওয়ার্ডস জানান, ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে মার্চের মধ্য পর্যন্ত প্রায় ২৫ হাজারের মতো বাংলাদেশী ও রোহিঙ্গা মানব পাচারের শিকার হয়েছে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় অনিয়মিত সমুদ্রপথে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার থেকে মালয়েশিয়া পৌঁছানোর আশায় ঝুঁকিপূর্ণ সমুদ্রপথে যাত্রা করছেন হাজারো মানুষ। অবৈধপথে থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়া পৌঁছানো ব্যক্তিদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ইউএনএইচসিআরের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ঝুঁকিপূর্ণ এসব যাত্রায় এ বছরের প্রথম তিন মাসে ৩শ’ ব্যক্তি মারা গেছেন। ২০১৪ সালের অক্টোবর থেকে মারা গেছেন মোট ৬২০ জন। এদের অধিকাংশেরই মৃত্যু হয়েছে ক্ষুধা-তৃষ্ণা আর নির্যাতনে। অনেকে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের শিকার হওয়ার কথাও বলেছেন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, সংখ্যলা প্রদেশে গণকবরে পাওয়া মৃতদেহগুলো বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের অভিবাসীদের। ইউএনএইচসিআর মানবপাচারের সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত করে বিচারের আওতায় আনার আহ্বান জানিযেছে। মানবপাচার ঠেকাতে সংস্থাটি এ অঞ্চলের দেশগুলোকে আরও নিবিড়ভাবে একসঙ্গে কাজ করার কথা বলেছে। অবৈধ পথে মানবপাচার বাণিজ্যের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর জন্য সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: