১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৩ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

১২ বছর বয়সে বিয়ের পিঁড়িতে জোছনা


বাদল রহমান ও জোছনা বেগম, ২০ বছরের দম্পতি। সংসার জীবনে তাদের দু’সন্তান, বড় ছেলে এবার এইচএসসি চূড়ান্ত পরীক্ষা দিচ্ছে আর ছোট মেয়ে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী। এই দম্পতির এখন একটাই স্বপ্ন তাদের ছেলেমেয়েকে যথাসম্ভব পড়ালেখা করিয়ে প্রতিষ্ঠিত মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা। এর আগে তাদের বিয়ে নিয়ে কোন আলাপ আলোচনা হবে না। কারণ তারা নিজেরা জীবনে যে ভুল করেছেন আর ভোগান্তির শিকার হয়েছেন এমনটি যেন তাদের সন্তানের ক্ষেত্রে না হয়।

ঠাকুরগাঁও শহরের ডিসি বস্তির বাসিন্দা রিক্সাচালক বাদল রহমান ১৯৯৫ সালের অক্টোবরে ২২ বছর বয়সে বিয়ে করেছিলেন একই মহল্লার ১২ বছর বয়সী জোছনা বেগমকে। বিয়ের পর তিনি কোনভাবেই নববধূকে নিয়ে ঘর করতে পারছিলেন না। কারণ উঠতি বয়সে ঝোঁকের বশে মা-বাবার পছন্দে যে বধূটিকে তিনি বিয়ে করেছিলেন সে তখনও জানত না, মানুষ বিয়ে কেন করে আর বিয়ের অর্থ কী। বাদল তখন বুঝতে পারেন অল্প বয়সের অবুঝ মেয়েকে বিয়ে করে তিনি কী বোকামি করেছেন। যা হোক, বিয়ে যেহেতু তিনি করেই ফেলেছেন সংসার তো করতে হবে। অনেক ভেবে ওই সময়কার সমস্যা সমাধানের জন্য তিনি এলাকার দাদী-নানীদের সহযোগিতা চান। তারা তখন বাদলের নববধূকে বিয়ে এবং সংসার সর্ম্পকে ধারণা দেন। এভাবেই তাদের দাম্পত্য জীবন এগিয়ে চলে। বিয়ের দু’বছর পর তাদের ঘর আলো করে আসে ছেলেসন্তান। এরমধ্যে বাদল তার স্ত্রীর স্বাস্থ্যগত সমস্যা আর জটিলতা নিয়ে অসংখ্যবার ভোগান্তির শিকার হয়েছেন।

Ñএসএম জসিম উদ্দিন

ঠাকুরগাঁও থেকে