২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

আলাপন ॥ ইচ্ছে ছিল গায়ক হওয়ার


যে বই বারবার পড়ি

জাপানি কথাসাহিত্যিক ইউসুনারি কাওয়াবাতার উপন্যাস ‘হাজার সারস’।

যে বই এখনও হয়নি পড়া

এ মুহূর্তে আমার হাতের কাছে একটি বই আছে। সংস্কৃত থেকে বাংলায় অনূদিত এ বইটির নাম ‘ত্রিখ- পু-রিক সূত্র’।

যে চলচ্চিত্র দাগ কেটে আছে মনে

হিন্দি ছবি ‘বাইজু বাউরা’। এ ছবিটি সবচেয়ে বেশি দেখেছি।

সিনেমার যে নায়িকা আমার চোখে নায়িকা

ব্রিটিশ অভিনেত্রী অড্রে হেপবার্ন।

যে গান গুনগুন করে গাই

ডাকে পাখি খোলো আঁখি/ দেখো সোনালি আকাশ/ বহে ভোরেরও বাতাস।...

প্রিয় যে কবিতার পঙ্ক্তিটি মনে পড়ে মাঝে মাঝে

সুধীন্দ্রনাথ দত্তের ‘উটপাখি’ কবিতার সেই পঙ্ক্তি- ‘ফাটা ডিমে আর তা দিয়ে কী ফল পাবে?/ মনস্তাপেও লাগবে না ওতে জোড়া।

খ্যাতিমান যে মানুষটি আমার বড় প্রিয়

রবীন্দ্রনাথ।

যে ফুলের গন্ধে ঘুম আসে না

মালতী। আমার বাড়িতে এর একটি গাছ আছে। যখন ফুল ফোটে তখন এর গন্ধে সত্যিই ঘুম আসে না ...

যা খেতে ভালবাসি খুব

সুপচা হুস্কি

যা সহ্য করতে পারি না একেবারেই

দেশের অবমাননা করা

জীবনে যার কাছে সবচেয়ে বেশি ঋণী

আমার ঠাকুরমা। তাঁর কাছে প্রকৃতির পাঠ নিয়েছি।

যেমন নারী আমার পছন্দ

যে আমাকে স্বাধীনতা ও নির্ভরতা দেয়।

যেখানে যেতে ইচ্ছে করে

সমুদ্রে, অরণ্যে, পর্বতে।

যেভাবে সময় কাটাতে সবচেয়ে ভালো লাগে

একা আয়েশ করে।...

যে স্বপ্নটি দেখে আসছি দীর্ঘদিন ধরে

নদী বা সমুদ্রের ওপর তীব্র গতিতে ওয়াটার স্কি করছি, অথচ পড়ছি না।...

যে কারণে আমি লিখি

না লিখে থাকা যায় না, কী করব?

নিজের যে বইটির প্রতি বিশেষ দুর্বলতা আছে

শ্রামণ গৌতম, সমুদ্রচর ও বিদ্রোহীরা।

ভালবাসা মানে আমার কাছে

সবকিছু।

আমার চোখে আমার ভুল

অসঙ্গতির সঙ্গে তাল মিলাতে পারি না।

জীবনে যা এখনও হয়নি পাওয়া

সত্য করে বলব, নাকি মিথ্যে করে বলব? সত্য করে বললে একটা, আর মিথ্যে করে বললে আরেকটা। তাই কোনটাই বলব না।

যে স্মৃতি এখনও চোখে ভাসে

আমার ভালবাসার দিনগুলো।

যা হতে চেয়েছিলাম- পারিনি

একটা সময় ইচ্ছে ছিল গায়ক হওয়ার। কিন্তু শেষ পর্যন্ত লেখালেখিতেই চলে এলাম।

জীবনের এ প্রান্তে এসে যতটা সফল মনে হয় নিজেকে

সফলতা ও ব্যর্থতা আমার কাছে একই।

যা ভাল লাগে- পাহাড় নাকি সমুদ্র?

বলা মুশকিল। দুটোই প্রিয় আমার।

যেটা বেশি টানে- বর্ষার বৃষ্টি নাকি শরতের নীলাকাশ?

বর্ষা আমার ভীষণ প্রিয়।

সাক্ষাৎকার : অঞ্জন আচার্য