১৯ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

মানুষ পুড়িয়ে ক্ষমতায় যাওয়ার আন্দোলন ব্যর্থ হয়েছে ॥ এরশাদ


স্টাফ রিপোর্টার ॥ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, শ্রমজীবী ও সাধারণ মানুষ পুড়িয়ে ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য যারা আন্দোলন করেছিল তারা ব্যর্থ হয়েছে। শুক্রবার কাকরাইলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে মহান মে দিবস উপলক্ষে জাতীয় শ্রমিক পার্টি আয়োজিত এক শ্রমিক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। এ সময় শ্রমজীবী মানুষের কল্যাণে কাজ করতে দলকে ফের ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকারও নির্দেশ দেন তিনি।

শান্তির জন্য নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে পরিবর্তন আনতে জাতীয় পার্টির কোন বিকল্প নেই একথা উল্লেখ করে সাবেক স্বৈরশাসক এরশাদ বলেন, শ্রমজীবী ও সাধারণ মানুষ পুড়িয়ে ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য যারা আন্দোলন করেছিল তারা ব্যর্থ হয়েছে। মানুষ তাদের গ্রহণ করেনি। রাজনীতির মাঠে আন্দোলনকারীরা সময়ে সময়ে অপকর্মের জবাব পাবে।

দেশের শ্রমজীবী মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য কৃষির উন্নয়নে এবং পোশাক শিল্পের বিকাশে তার সরকারের আমলের বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি জনগণের কল্যাণে ও শান্তির জন্য রাজনীতি করে। এজন্য আমাদের দলের সেøাগান হলো, শান্তির জন্য পরিবর্তন।

শ্রমিকদের জন্য দুটি উৎসব ভাতা এবং দুটি গ্রাচুইটিসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার কথা উল্লেখ করে সাবেক সেনাপ্রধান এরশাদ বলেন, চাকরির জন্য বিদেশ যাওয়ার কোন প্রয়োজন নেই। আমাদের সম্পদকে কাজে লাগিয়ে দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জন করতে কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে নতুন শিল্প কারখানার বিকাশ ঘটাতে হবে। তাছাড়া কর্মসংস্থানের দিক বিবেচনা করলে আমাদের দেশ অনেক সম্ভাবনাময়। ইচ্ছা করলেই এ দেশে অনেক কাজ করা সম্ভব। অনেকের চাকরি দেয়া সম্ভব। সম্ভাবনাময় শিল্পের দেশ হলো বাংলাদেশ।

জাতীয় পার্টির পক্ষে পূর্ব দিগন্তে নতুন করে সূর্য উদিত হয়েছে উল্লেখ করে এরশাদ বলেন, এই সূর্যকে ছিনিয়ে আনতে হলে জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে ঘরে ঘরে গিয়ে কাজ করতে হবে।

জনগণ আবার জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতায় দেখতে চায় বলে তিনি মন্তব্য করেন। জাতীয় শ্রমিক পার্টির সভাপতি শাহ আলম তালুকদারের সভাপতিত্বে শ্রমিক সমাবেশে বক্তৃতা করেন পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমদ বাবলু, আবদুল মান্নান, এস এম ফয়সাল চিশতি, গোলাম কিবরিয়া টিপু, এ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভুঁইয়া।

শুরুতে সমাবেশে নেতাকর্মীদের উপস্থিতি কম দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন এরশাদ। তিনি বলেন, আমাদের দুর্বলতা কী তা জানি। আজকের সমাবেশেও অনেকে আসেননি, কেন আসেননি, জানি না। তবে যে যাই করেন না কেন, মনে রাখবেন নির্বাচনে এই লাঙ্গল প্রতীক নিয়েই যেতে হবে। শ্রমিকদের অধিকার রক্ষার জন্য কেউ কিছুই করে না। কেবল শ্রমিকদের রক্ত দিয়ে নিজেদের ব্যাংক এ্যাকাউন্টে টাকার পাহাড় বানান। মনে রাখা দরকার সব কিছুই নির্ভর করে শ্রমিক এবং কৃষকের ওপর। যে কারণে আমার শাসন আমলে একজন শ্রমিকও না খেয়ে মরেনি, ভিক্ষা করেনি।

দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এখন সময় এসেছে পরিবর্তনের। আপনারা আমার পাশে থাকুন, আমার হাতকে শক্তিশালী করুন। নতুন সূর্য উঠেছে, সে সূর্যকে আমরা ছিনিয়ে আনবই।

রওশনের সঙ্গে শারম্যানের সাক্ষাত ॥ বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ এমপির সঙ্গে তার গুলশানের বাসভবনে সাক্ষাত করেন মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের আন্ডার সেক্রেটারি (রাজনৈতিক) ওয়েন্ডি শারম্যান। সাক্ষাতে উন্নয়ন ও সুশাসন, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ এবং নিরাপত্তা, দ্বিপাক্ষিক ও আঞ্চলিক ইস্যুসহ বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতা কামনা করেন বিরোধীদলীয় নেতা।

বিরোধীদলীয় নেতা আরও বলেন, গার্মেন্টস সেক্টর আমাদের দেশে অন্যতম শক্তিশালী অর্থনৈতিক হাতিয়ার। তাই এ সেক্টরকে বেগবান রাখার জন্য জিএসপি সুবিধা পুনর্বহাল করার বিষয়ে আহ্বান জানান। এক প্রশ্নের উত্তরে ওয়েন্ডি শারম্যান জিএসপি সুবিধা বিবেচনার আশ্বাস দেন।

অপর এক প্রশ্নের উত্তরে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের আন্ডার সেক্রেটারি বলেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্র নির্ভর করছে বাংলাদেশের জনগণের ওপর। জনগণই ঠিক করবে তাদের কি করা উচিত এবং এ বিষয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সর্বাত্মক সহযোগিতা থাকবে।