২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ২ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

ন্যায্য মজুরি ও শ্রমিকের অধিকার দাবিতে মে দিবস পালিত


স্টাফ রিপোর্টার ॥ কর্মক্ষেত্রে কাজের উপযুক্ত পরিবেশ, ন্যায্য মজুরি ও শ্রমিকের অধিকার বাস্তবায়নের দাবিতে পালিত হয়েছে মহান মে দিবস। এ উপলক্ষে শুক্রবার সারাদেশে সমাবেশ, র‌্যালি ও আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়। বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের ব্যানারে আয়োজিত এসব কর্মসূচীতে অংশ নিয়ে বক্তারা বলেন, শ্রমিকের আজ ন্যূনতম মজুরি পেলেও পাচ্ছে না মর্যাদাপূর্ণ সম্মানজনকভাবে বাঁচার অধিকার। শ্রম আইনের নির্দেশিত জীবন মান থেকেও তারা বঞ্চিত হচ্ছে। সংগঠিত হওয়ার অধিকার তারা আজও পায়নি। গড়ে ওঠেনি নিজের অধিকারের কথা বলার মতো কোন প্লাটফর্ম। অথচ শ্রমিকের শ্রমকে পুঁজি করেই বিত্তবানরা বাড়িয়ে তুলেছে তাঁদের পুজির পাহাড়। তারা বলেন, শ্রমিকের মর্যাদাকর জীবন নিশ্চিত করার পাশাপাশি উৎপাদনশীলতা নিশ্চিতের যেমন প্রয়োজন রয়েছে। তেমনি সরকারকে অবশ্যই শ্রমিকদের আবাসন ব্যবস্থা ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। ট্রেড ইউনিয়ন করার অধিকার নিশ্চিত করার পাশাপাশি কথায় কথায় চাকরি হারানো ভয় যাতে শ্রমিককে পেতে না হয় এমন পরিস্থিতি তৈরিতে সরকারকে নীতিমালা গ্রহণ করতে হবে।

শুক্রবার বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের পক্ষ থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামন্যেও আয়োজন করা হয় বিভিন্ন মানববন্ধন, র‌্যালি ও সমাবেশের। এসব সমাবেশ থেকে শ্রমিকের ন্যায্য অধিকার বাস্তবায়নের দাবি জানান হয়। ‘গৃহ শ্রমিক সমাবেশে ও র‌্যালিতে’ অংশ নিয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, দেশের ১৪ লাখ গৃহ শ্রমিককে শ্রম আইনের আওতায় আনতে সরকার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

এদিকে জাতীয় শ্রমিক জোট বাংলাদেশ আয়োজিত মে দিবসের এক আলোচনাসভায় তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, সম্মানজনক ন্যূনতম জাতীয় মজুরি, নিরাপদ কর্মপরিবেশ, জঙ্গীবাদ ও আগুন সন্ত্রাস মুক্ত নিরাপদ বাংলাদেশই অর্থনীতিকে শক্ত ভিত দিতে সক্ষম। বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে টিকে থাকতে হলে ক্ষেত খামার, কলকারখানা চালু রাখতে হবে। শ্র্রমিকের ঘাম, শ্রমের উপর বাংলাদেশের অর্থনীতি অগ্রসর হবে। যে রাষ্ট্র শ্রমিকের ঘামের মর্যাদা দেয় না, সে সরকার বা রাষ্ট্র অমানবিক। শ্রম কখনও সস্তা নয়। শ্রমিক দয়ার পাত্র নয়। শ্রমিকের দাবি আদায়ের জন্য সংগ্রাম করতে হবে।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: