২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৭ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

পোশাক শ্রমিকদের উন্নয়নে তিন বছর মেয়াদী কর্মসূচী যুক্তরাষ্ট্রের


স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশের পোশাক শ্রমিকদের জন্য তিন বছর মেয়াদী উন্নয়ন কর্মসূচী ঘোষণা করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা ইউএসএআইডি পক্ষ থেকে পোশাক খাতে শ্রম অধিকার, ইউনিয়ন সংগঠন ও নারীর ক্ষমতায়নে সহযোগিতার জন্য তিন বছরব্যাপী শ্রমিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়। রবিবার ঢাকার মার্কিন দূতাবাস থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

রানা প্লাজা পোশাক কারখানা ধ্বসের দ্বিতীয় বার্ষিকী উপলক্ষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সংস্থা ইউএসআইডি এ কর্মসূচী ঘোষণা করেছে। ইউএসএআইডির এশিয়া বিষয়ক সহকারী প্রশাসক জোনাথন স্টিভার্স জানিয়েছেন, ইউএসএআইডির শ্রমিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচী, মৌলিক শ্রম অধিকার, কর্মস্থানের নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশ সম্পর্কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সদিচ্ছা প্রতিফলিত করেছে। এই কর্মসূচীর অন্যতম উদ্দেশ্য রানা প্লাজার মতো দুর্ঘটনা যেন রোধ করা যায়। তিনি আরও জানান, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের সরকার, আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থা, পোশাক শিল্প খাতের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চায় এই গুরুত্বপূর্ণ খাতে শ্রমিকদের কথা বলার সুযোগ করে দেয়া ও আন্তর্জাতিক মানে শ্রম আইনের রূপান্তরের মাধ্যমে তাদের ক্ষমতায়ন করা।

এই নতুন শ্রমিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচীর ফলে সংগঠনের শ্রমিকদের ক্ষমতায়নের মাধ্যমে স্বাধীন শ্রমিক সংগঠনের দক্ষতা বৃদ্ধি করবে। বিশেষ করে নারী শ্রমিকদের অধিকার ও স্বার্থ সংরক্ষণ, কর্মস্থান ও এলাকার পরিবেশ উন্নয়ন ও প্রয়োজনীয় দক্ষতা ও সহায়তা প্রদান করা। এ কর্মসূচী বৈশ্বিক শ্রম কর্মসূচীর পরিপূরক। নতুন এ কর্মসূচী অনুযায়ী শ্রম আইন বিষয়ে শ্রমিকদের প্রশিক্ষণ, আইনী সহায়তা, নতুন ইউনিয়ন সংগঠিত ও নিবন্ধিত করতে সহায়তা দেয়া হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে নিবিড়ভাবে কাজ করে যাবে। এছাড়া এ কর্মসূচীর মাধ্যমে শ্রমিকদের নিরাপত্তা ও অধিকারের সঙ্গে সঙ্গে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় প্রায় সাড়ে ১১শ’ শ্রমিক নিহত হয়। আহত হয় আরও প্রায় আড়াই হাজার শ্রমিক।