২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ড্রোন হামলায় ঝুঁকির বিষয়টি তুলে ধরছে পাকিস্তান


মার্কিন ড্রোন হামলায় জানুয়ারিতে দুর্ঘটনাবশত দুই পাশ্চাত্য জিম্মির নিহত হওয়ার ঘটনায় স্পষ্ট প্রমাণিত হয়, চালকবিহীন বিমান হামলায় ঝুঁকি রয়েছে এবং তা অনভিপ্রেত ফল বয়ে আনে, বলেছে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। খবর গার্ডিয়ান অনলাইনের।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, মার্কিন ত্রাণকর্মী জিম্মি ওয়ারেন উইনস্টিন ও ইতালীয় জিম্মি গিওভানিলো পোর্তো ১৫ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে নিহত হয়েছেন। এ তথ্য প্রকাশিত হওয়ার পর তা দেশটির জন্য প্রচ- আঘাত ও দুঃখজনক হয়ে দেখা দিয়েছে। মন্ত্রণালয় শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলে, ড্রোন হামলায় এ দুই জিম্মি নিহত হওয়ায় এটা স্পষ্ট যে, সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে এ প্রযুক্তি ব্যবহার ঝুঁকিপূর্ণ এবং তাতে অনভিপ্রেত পরিণাম বয়ে আনে। পাকিস্তান অবশ্য এ প্রযুক্তি ব্যবহারে বেশ গুরুত্ব দিয়েছে দীর্ঘদিন। সন্ত্রাসবিরোধী এ লড়াইয়ে হাজার হাজার নিরাপরাধ বেসামরিক মানুষ নিহত হওয়ায় পাকিস্তান এখন এ করুণ পরিণতির বিষয়টি পুরোপুরি উপলব্ধি করতে পারছে এবং এ কঠিন সময়ে উইনস্টিন ও লো পোর্তোর পরিবারবর্গের পাশে রয়েছে দেশটি। আলকায়েদা জঙ্গীদের লক্ষ্যস্থলে ১৫ জানুয়ারির ড্রোন হামলায় ওই দুই পাশ্চাত্য নাগরিক নিহত হন। তারা জিম্মি হিসেবে আটক ছিলেন জঙ্গীদের হাতে। গোপন তথ্য আর গোপন রাখা হবে না, এ লক্ষ্যে হোয়াইট হাউস এক লক্ষ্যণীয় উদ্যোগ গ্রহণ করলে শুক্রবার তাদের নিহত হওয়ার তথ্য বেরিয়ে আসে। মার্কিন কর্মকর্তারা স্বীকার করেছেন তারা আলকায়েদার হাতে জিম্মি উইনস্টিন ও লো পোর্তোর নিহত হওয়ার বিষয়টি জানতেন না।

ইতালির প্রধানমন্ত্রী ম্যাটিও রেনজি ইতালীয় নাগরিক লো পোর্তো দুর্ঘটনায় নিহত হওয়ার খবর কয়েক মাসের মধ্যে কেন জানতে পেলেন না এ ব্যাপারে দেশে বিতর্কের সম্মুখীন হয়েছেন। এমনকি তিনি গত সপ্তাহে হোয়াইট হাউসে বারাক ওবামার সঙ্গে সাক্ষাতের পরও এ তথ্য জানতে পারেননি।