১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

গো আযমের পরিবার কীভাবে ‘ভিআইপি মর্যাদা পায়: উচ্চ আদালত


স্টাফ রিপোর্টার॥ মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত জামায়াতের সাবেক আমির গোলাম আযমের স্ত্রী ও ভাতিজার জন্য ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কীভাবে ‘ভিআইপি মর্যাদার’ ব্যবস্থা করা হয়েছিল তা জানতে চেয়েছে উচ্চ আদালত। গত ৮ এপ্রিল ওই ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কি না- তাও জানতে চেয়েছে আদালত।

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানকে ২ সপ্তাহের মধ্যে এ বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে হবে।

দৈনিক জনকণ্ঠে ৯ এপ্রিল প্রকাশিত প্রতিবেদন আমলে নিয়ে বুধবার বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমানের হাই কোর্ট বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এই রুল দেন।

জনকণ্ঠে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদন আদালতে তুলে ধরেন আইনজীবী মুনতাসির উদ্দিন আহমেদ।

স্বরাষ্ট্র সচিব, সিভিল এভিয়েশনের চেয়ারম্যান, উত্তরা পুলিশের ডিসি, বিমানবন্দর থানার ওসি, শাহজালাল বিমানবন্দরের পরিচালক, প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা এবং ‘ভিআইপি পাসের’ ব্যবস্থাকারী বেলেনা বেগমকে ২ সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আদালত এ বিষয়ে পরবর্তী আদেশের জন্য ১২ মে দিন রেখেছে বলে মুনতাসির জানান।

জনকণ্ঠের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, গোলাম আযমের স্ত্রী ও ভাতিজা গত ৮ এপ্রিল সৌদি আরব যাওয়ার জন্য ভিআইপি পাস নিয়ে ইমিগ্রেশন পার হতে চাইলে পুলিশ তাদের আটকে দেয়। পরে মুচলেকা রেখে বিমানবন্দর থেকে তাদের বের করে দেওয়া হয়।

দণ্ডিত যুদ্ধাপরাধীদের স্ত্রী, পুত্র, কন্যা ও নিকটাত্মীয়দের ‘দেশ ত্যাগে নিষেধাজ্ঞা’ থাকার পরও শাহজালাল বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন জাকির হাসান পরিচয় গোপন রেখে তাদের জন্য ভিআইপি মর্যাদার ব্যবস্থা করেন বলে ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।