২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

মাদক যানজট ভেজাল খাবারমুক্ত ঢাকা গড়ার অঙ্গীকার


স্টাফ রিপোর্টার ॥ নির্বাচিত হলে সিটি কর্পোরেশনকে সত্যিকারেই দুর্নীতিমুক্ত, জনকল্যাণমূলক ও কার্যকর প্রতিষ্ঠানে রূপ দেয়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন ঢাকা উত্তরের মেয়র প্রার্থীরা। এছাড়া ঢাকাকে মাদকমুক্ত, যানজটমুক্ত, ভেজাল খাবারমুক্ত একটি আদর্শ নগরীতে পরিণত করারও অঙ্গীকার করেছেন তারা। শুক্রবার রাজধানীর গুলশান-১ এ ইম্যানুয়েলস ব্যাংকুয়েট হলে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) ও নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ ফোরামের (নাসফ) যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত জনগণের মুখোমুখি অনুষ্ঠানে প্রার্থীরা এ অঙ্গীকার করেন। অনুষ্ঠানে ভোটাররা দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসী, যুদ্ধাপরাধী, ধর্মব্যবসায়ীদের বর্জন করার শপথ নিয়েছেন। ‘একটি রাষ্ট্রে নাগরিকের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদ নেই’ শিরোনামে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে আনিসুল হক, তাবিথ আউয়াল, মাহী বি চৌধুরী, জোনায়েদ সাকী, নাদের চৌধুরীসহ ১২ জন মেয়র প্রার্থী উপস্থিত ছিলেন। মেয়র প্রার্থীরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ভোটারদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন এবং নিজ নিজ বক্তব্যে সিটি কর্পোরেশনকে ঘিরে তাদের প্রত্যাশা ও পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন। সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। এরপর ছিল ভোটারদের শপথ গ্রহণ। ভোট প্রদানকে পবিত্র দায়িত্ব মনে করে সৎ, যোগ্য ও জনকল্যাণে নিবেদিত প্রার্থীর সপক্ষে ভোটাধিকার প্রয়োগ করার অঙ্গীকার গ্রহণ করেন উপস্থিত ভোটাররা।

ভোটাররা অঙ্গীকার করেন, আমরা অর্থ বা অন্য কিছুর বিনিময়ে অথবা অন্ধ আবেগের বশবর্তী হয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করব না। দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, মিথ্যাচারী, যুদ্ধাপরাধী, ধর্মব্যবসায়ী, নারী নির্যাতনকারী, মাদক ব্যবসায়ী, চোরাকারবারি, সাজাপ্রাপ্ত আসামি, ঋণখেলাপী, বিলখেলাপী, ভূমিদস্যু, কালোটাকার মালিক অর্থাৎ কোন অসৎ, অযোগ্য ও গণবিরোধী ব্যক্তিকে ভোট দেব না। অনুষ্ঠানে আনিসুল হকের আসতে কিছুটা বিলম্ব হওয়ায় প্রতিদ্বন্দ্বী মেয়রপ্রার্থী আবদুল্লাহ আল ক্বাফি প্রশ্ন তোলেন। তবে সদা হাস্যোজ্জ্বল আনিসুল হক উত্তরে নিজের দোষ স্বীকার করে বিনয়ের সঙ্গে ক্ষমা চেয়ে নিলেন। বলেন, আমার আচরণ যদি আপনাদের আহত করে আমি ক্ষমা চাইছি। বিশেষ করে ক্বাফির কাছে।