১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

এলপিজি সিলিন্ডারের বাজারে প্রবেশ করল ওপিএল


স্টাফ রিপোর্টার ॥ আবাসিক খাতে নতুন করে গ্যাস সংযোগ না দেয়ার সরকারী সিদ্ধান্তের মধ্যেই বাজারে এলপি গ্যাস (এলপিজি) সিলিন্ডার আনার ঘোষণা দিয়েছে ওমেরা পেট্রোলিয়াম লিমিটেড (ওপিএল)। বাসা বাড়িতে গ্যাসের উচ্চ চাহিদা বিবেচনায় সাড়ে ৫ কেজি, ১২ কেজি ও ৩৫ কেজি আকারের তিনটি সিলিন্ডার বাজারে আনছে প্রতিষ্ঠানটি। ওমেরা সিলিন্ডার ও ওমেরা এলপি গ্যাস- দেশে এই দুটি ব্র্যান্ডের প্রসারের জন্য ৬০০ কোটি টাকা বিনিয়োগের পরিকল্পনা করেছে তারা। ‘নিরাপদ সিলিন্ডার, নির্ভরতা সবার’ সেøাগান নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি চলতি মাসে ৮০ হাজার এলপিজি সিলিন্ডার বিক্রির লক্ষ্যমাত্রাও চূড়ান্ত করেছে।

রবিবার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে এলপিজি সিলিন্ডারের বাজারে প্রবেশ উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের উর্ধতন কর্মকর্তারা এসব তথ্য জানান। এতে উপস্থিত ছিলেন ইস্টকস্ট গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানজিল চৌধুরী, এমজেএল বাংলাদেশ লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কেএইচ সানাউল হক, ওমেরা সিলিন্ডার্স লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম অনিকেত সেলিম, ওমেরা পেট্রোলিয়াম লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইশতিয়াক আহমেদ ও ব্যবস্থাপক (কর্পোরেট প্ল্যানিং) তানজিম চৌধুরী প্রমুখ। ওপিএল হলো এমজেএল বাংলাদেশের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান। কর্মকর্তাদের দাবি, নতুন এই এলপিজি সিলিন্ডারগুলো আন্তর্জাতিক মানের। স্বয়ংক্রিয় মেশিনে ইউরোপীয় প্রযুক্তিতে নিজস্ব প্লান্টে এগুলো প্রস্তুত করা হয়।

ওপিএলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ইশতিয়াক আহমেদ বলেন, গত মার্চের শুরু থেকে এলপিজি সিলিন্ডার বিক্রি শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে প্রতিষ্ঠানটি প্রায় ৮০ হাজার সিলিন্ডার বিক্রি করেছে। চলতি মাস শেষে এই বিক্রির পরিমাণ ১ লাখ একক ছাড়িয়ে যাবে। চলতি বছরে প্রতিষ্ঠানটির ৩ লাখ সিলিন্ডার বিক্রির পরিকল্পনা রয়েছে। এ বিক্রি বিদ্যমান বাজারে এলপিজি অন্তর্ভুক্তির প্রায় ৪০ শতাংশ বলে জানান তিনি। এ সময় তিনি এলপি গ্যাস খাতে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের মান নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা কঠোরভাবে মনিটরিংএয়ের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বানও জানান।

১২ কেজি ওজনের সিলিন্ডার গ্যাসসহ কিনতে দাম পড়বে ২ হাজার ৩৫০ টাকা। শুধু গ্যাসের দাম পড়বে ১ হাজার ৫০ টাকা। গ্লসি লেমন-ইয়েলো ও গ্লসি উইন্ডো গ্রে- এই দুটি রঙের সিলিন্ডার বাজারে পাওয়া যাবে। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, এলপিজির সরবরাহ নিশ্চিত করতে দেশের চারটি স্থান-মংলা, ঘোড়াশাল, বগুড়া ও মীরসরাইতে আধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন বটলিং ও স্টোরেজ ব্যবস্থা করা হয়েছে। যার মোট বাৎসরিক উৎপাদন ক্ষমতা হবে ১ লাখ টন।