২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ডার্বির আগে রুনির উচ্ছ্বাস


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আরেকটি মহারণের অপেক্ষায় ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগ। রবিবার ম্যানচেস্টার ডার্বিতে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে সিটিকে আতিথ্য জানাবে ইউনাইটেড। আর ম্যানচেস্টার ডার্বির আগে দারুণ রোমাঞ্চিত রেড ডেভিলদের ইংলিশ অধিনায়ক ওয়েইন রুনি। সিটির বিপক্ষে জিতে নিজেদের সমর্থকদের মুখে হাসি ফুটাতে চান তিনি। এ বিষয়ে ওয়েইন রুনি বলেন, ‘আপনি যখন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের জার্সিতে খেলবেন তখন ডার্বিটা অবশ্যই জিততে চাইবেন। অন্য দিনের মতো সোমবার সকালেও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সমর্থকরা কাজ শুরু করবেন। আমি চাই তখন নিজেদের মুখে হাসি নিয়েই যেন কাজে যোগ দিতে পারে ইউনাইটেডের সমর্থকরা।’ গত মৌসুমে ইউনাইটেডকে স্বরূপে দেখা যায়নি। চলতি মৌসুমের শুরুটাও বাজে ছিল রেড ডেভিলদের। কিন্তু শুরুর সেই হতাশা ক্রমেই কাটিয়ে উঠছে লুইস ভ্যান গালের দল। বর্তমানে ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের পয়েন্ট টেবিলের তৃতীয় স্থানে অবস্থান করছে তারা। ৩১ ম্যাচে ৬২ পয়েন্ট নিয়ে তিনে আছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। সমান সংখ্যক ম্যাচে ১ পয়েন্ট বেশি নিয়ে তাদের উপরে অবস্থান আর্সেনালের। আর ৩০ ম্যাচ খেলেও ৭০ পয়েন্ট নিয়ে লীগ টেবিলের শীর্ষে অবস্থান করছে চেলসি। তাই ওয়েই রুনির মতো ম্যানসিটির বিপক্ষে ম্যাচটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি এটা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এবং ম্যানচেস্টার সিটি উভয় দলের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ একটি ম্যাচ। ভক্ত-অনুরাগী এবং আমার জন্যও এই ম্যাচটা অনেক গর্বের।’ ম্যানচেস্টার সিটির সময়টা এখন দারুণ কাটছে। শেষ পাঁচ ম্যাচের সবই জয়ের দেখা পেয়েছে রেড ডেভিলরা। শেষ ম্যাচে এ্যাস্টন ভিল্লার বিপক্ষে একটি সুপার ভলিতে গোল করেছিলেন ওয়েন রুনি। তাই পারফর্মেন্সের ধারাবাহিকতা সিটির বিপক্ষেও ধরে রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন তিনি। ২০০৪ সালে এভারটন থেকে ইংলিশ জায়ান্ট ম্যানইউতে যোগ দিয়েছিলেন রুনি। এরপর থেকেই ডার্বির ইতিহাসে সর্বোচ্চ ১১ গোলের মালিক তিনি। সিটির এখন দুঃসময়। কেননা শেষ পাঁচ ম্যাচের জয় মাত্র দুটিতে। শেষ ম্যাচে ক্রিস্টাল প্যালেসের বিপক্ষেও হার মানে ম্যানুয়েল পেলেগ্রিনির শিষ্যরা। আরও পেছনের পরিসংখ্যান ঘাটলে দেখা যায় শেষ ১১ ম্যাচে সিটি জয় পেয়েছে মাত্র চারটিতে। তারপরও নিজের পারফর্মেন্সে ম্যানসিটির কোচ ম্যানুয়েল পেলেগ্রিনি। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি মোটেই আমার চাকরি নিয়ে উদ্বিগ্ন নই। আমি আমার কাজটা ঠিকই করে যাচ্ছি এবং তাতে দারুণ আনন্দিত। আপনার কঠিন সময় আসতেই পারে কিন্তু এ নিয়ে কখনই চিন্তার কিছু নেই।’

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: