২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

অর্থ দেখিয়ে ইইউতে বিভেদের বীজ বুনছেন পুতিন


সাইপ্রাস তার পতনোন্মুখ অর্থ ব্যবস্থাকে উদ্ধার করতে দু’বছর আগে আন্তর্জাতিক মধ্যস্থতায় স্বাক্ষরিত এক চুক্তির আওতায় ব্যাংক গ্রাহকদের শত শত কোটি ডলার জব্দ করে। গ্রাহকদের অনেকেই ছিলেন রুশ। তখন রুশ নেতা ভøাদিমির পুতিন ওই পদক্ষেপকে ‘বিপজ্জনক ও অন্যায়’ বলে নিন্দাবাদ জানান। এতে দেশ দুটির মধ্যে তিক্ততা সৃষ্টি হতে পারে বলেও তিনি সতর্ক করে দেন।

কিন্তু সম্প্রতি পুতিনই মস্কোতে সাইপ্রাসের প্রেসিডেন্ট নিকোস এ্যানাস্টেসিয়াভিজকে মস্কোতে হাস্যোজ্জ্বল মুখে স্বাগত জানান। তিনি ওই ভূমধ্যসাগরীয় দেশটির সঙ্গে বিদ্যমান সম্পর্ককে ‘সর্বদাই সত্যিকারার্থে বন্ধুপ্রতিম ও পারস্পরিকভাবে হিতকর’ বলে বর্ণনা করেন। তিনি সাইপ্রাসকে অনেক সহজশর্তে ২৫০ কোটি ডলার রুশ ঋণ দিতে সম্মত হন। ক্ষোভ প্রকাশ থেকে সরে গিয়ে চিরবন্ধুত্বের ঘোষণায় পুতিনের সুপরিচিত কৌশল বদলানোর দক্ষতাই প্রদর্শিত হলো। কিন্তু এতে রাশিয়ার ওপর যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের আরোপিত নিষেধাজ্ঞা ছিন্নভিন্ন করে দিতে তাঁর অনমনীয় সংকল্পও প্রকাশ পায়। মস্কোর ক্রিমিয়া দখল এবং পূর্ব ইউক্রেনের সশস্ত্র বিদ্রোহীদের প্রতি সমর্থনের কারণে ওই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। ইউরোপের প্রান্তসীমার কোন কোন সঙ্কটাপন্ন দেশের ওপর প্রভাব বিস্তার করতে পুতিন ইউরোপীয় ইউনিয়নের দুর্বলতম দেশগুলোকেই বেছে নিয়েছেন।

এক্ষেত্রে তিনি নগদ অর্থ এবং ঐতিহাসিক ও আদর্শিক উত্তেজনা ছড়ানোর পথ বেছে নেন। তাঁর সুস্পষ্ট লক্ষ্য হলো ইউক্রেনের সংঘাত নিয়ে পাশ্চাত্যে গড়ে ওঠা ঐক্যে ভাঙ্গন ধরানো। ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে সমর্থকদের সরিয়ে নিতে পুতিনের চেষ্টা রবিবার ইইউতে নতুন ফাটলের জন্ম দেয়। ওই দিন প্রাগের মার্কিন রাষ্ট্রদূত চেক রিপাবলিকের প্রেসিডেন্ট মিলোস জেমানের ৯ মে মস্কোতে অনুষ্ঠেয় এক সামরিক কুচকাওয়াজে যোগ দেয়ার সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেন। ফেব্রুয়ারিতে পুতিন হাঙ্গেরি সফর করে কয়েকটি

অর্থনৈতিক চুক্তি সই করেন। এ্যানাস্টেসিয়াভিজ গত সপ্তাহে বলেন, রশিয়ার প্রতি ইউরোপের গৃহীত নীতির কার্যকারিতা নিয়ে সাইপ্রাসের গুরুতর সন্দেহ রয়েছে। তিনি বলেন, কয়েকটি রাষ্ট্র একই ভিন্নমতের অংশীদার। তিনি সাইপ্রাসের রাজধানী নিকোশিয়াতে এক সাক্ষাতকার দিচ্ছিলেন।Ñইন্টারন্যাশনাল নিউইয়র্ক টাইমস