২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

না’গঞ্জ মেরিন টেকনোলজিতে ঘাঁটি গেড়ে নাশকতা চালাচ্ছে শিবির


স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ ॥ বন্দর উপজেলার সোনাকান্দায় নৌ-খাতে দক্ষ জনশক্তি তৈরির জন্য গড়ে তোলা সরকারী প্রতিষ্ঠান ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজিকে ঘাঁটি বানিয়ে শহরের বিভিন্ন এলাকায় নাশকতা চালাচ্ছে শিবির চক্র। এ অপতৎপরতার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে কিছু শিক্ষকের বিরুদ্ধেও। সোমবার বিকেলে শহরের ডনচেম্বার এলাকায় যাত্রীবাহী বাসে পেট্রোলবোমা মেরে আগুন দেয়ার সময় হাতনাতে ধরা পড়ে ওই প্রতিষ্ঠানের ছাত্র ইউসুফ হোসেন শোভন। তাকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী মঙ্গলবার ভোররাতে ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজিতে যৌথ বাহিনী অভিযান চালিয়ে ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। তিনজনকে শিবির কর্মী হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে। ওই দিন সন্ধ্যায় আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে ইউসুফ আলী শোভন চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে। নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি জানান, গত তিন মাসে শহরে বাসে আগুন দেয়ার কয়েকটি ঘটনায় ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজির ছাত্রদের জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। সোমবার বিকেলে শহরের ডনচেম্বারে বাসে আগুন দিতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ে ইউসুফ হোসেন শোভন। সে মঙ্গলবার আদালতে দেয়া জবানবন্দীতে বলেছে, ওই প্রতিষ্ঠানের অনেক শিক্ষার্থীই শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। বাইরে থেকে পড়তে আসায় এদের কেউ চেনে না। তাই নাশকতামূলক কাজে তাদের ব্যবহার করা হচ্ছে। বন্দর থানার ওসি বলেন, শুধু ছাত্র নয়, জামায়াত-শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত কিছু শিক্ষকও নাশকতার সঙ্গে জড়িত। কয়েক মাস আগে এ রকম অভিযোগে শহীদুল ইসলাম আশরাফী নামে ওই প্রতিষ্ঠানের এক শিক্ষককে গ্রেফতার করা হয়। ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজির অধ্যক্ষ মোঃ আকরাম আলী বলেন, ছাত্রদের বাইরে কে কি করে তা জানা আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। শিক্ষকদের বিরুদ্ধে আমার কাছে কেউ কোন অভিযোগ করেনি। যৌথ অভিযানে ৫ ছাত্রকে আটক করা হয়। ২ জনের সম্পৃক্ততা না থাকায় ছেড়ে দেয়া হয়েছে। ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনার পর ছাত্রদের সতর্ক করে দেয়া হয়েছে।