১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৫ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

এডেন থেকে পিছু হটেছে হুতি বিদ্রোহীরা


ইয়েমেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর এডেন থেকে শিয়া হুতি বিদ্রোহীদের শুক্রবার হটিয়ে দিয়েছে ক্ষমতাচ্যুত ইয়েমেনী প্রেসিডেন্ট আব্দ-রাব্বু মনসুর হাদির সমর্থক বাহিনী। হাদি সমর্থকরা শহরে তাদের অবরুদ্ধ এলাকায় সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের যুদ্ধবিমান থেকে অস্ত্র ও যোগাযোগ সরঞ্জমাদির সহায়তায় এবং জোটের বিমান হামলার ছত্রছায়ায় এ সফলতা অর্জন করেছে। এডেনে লড়াইয়ে অগ্রযাত্রার কয়েক দিন পর হুতিরা এ বিপর্যয়ের শিকার হলো। অন্যদিকে, দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ হাজরা মাউতের রাজধানী মুকাল্লা শুক্রবার বিনা বাধায় দখল করে নিয়েছে সুন্নি চরমপন্থীরা। খবর বিবিসি অনলাইনের।

হুতিরা হাদির ক্ষমতার ঘাঁটি এডেনের দিকে অগ্রাভিযান শুরু করলে সৌদি আরব আতঙ্কিত হয়ে পড়ে এবং আঞ্চলিক সমর্থকদের নিয়ে নয় দিন আগে বিমান অভিযান শুরু করে হুতিদের বিরুদ্ধে। বিদ্রোহীরা এডেনে অগ্রসর হলে ইয়েমেনী প্রেসিডেন্ট হাদি ২৫ মার্চ সৌদি আরবের তত্ত্বাবধানে পালিয়ে যান রিয়াদ। তিনি আরব বসন্ত বিক্ষোভে উৎখাত সাবেক প্রেসিডেন্ট আলী আবদুল্লাহ সালেহর অনুগত বাহিনী হুতি ও আল কায়েদার বিরোধিতার সম্মুখীন হন।

এ সপ্তাহে শিয়া হুতি বিদ্রোহীরা ট্যাঙ্ক ও সাঁজোয়াযান নিয়ে এডেনের কেন্দ্রস্থলে ঢুকে পড়ে। কিন্তু তারা পার্শ্ববর্তী ক্র্যাচার ও প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ নিয়ন্ত্রণে নিলেও শুক্রবার হাদির প্রতি অনুগত বাহিনীর হামলার মুখে হটে যেতে বাধ্য হয়।

মুকাল্লায় এক সামরিক কর্মকর্তা বলেছেন, আল কায়েদা সুন্নি চরমপন্থীরা শুক্রবার শহরটি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দখল করে নিয়েছে। তারা এখন প্রায় পুরো শহরে তাদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেছে। আল কায়েদা জঙ্গীরা মুকাল্লা কারাগারে ঢুকে এক বিশিষ্ট স্থানীয় আল কায়েদা নেতা খালেদ বাতার্ফিসহ শ’খানেক বন্দীকে মুক্ত করার একদিন পর তারা শহরটি দখল করল।

জাতিসংঘ ত্রাণ সমন্বয়ক ভ্যালারি এমোস বলেছেন, গত দু’সপ্তাহের লড়াইয়ে প্রায় ৫শ’ ১৯ জন নিহত হয়েছে এবং আহত হয়েছে প্রায় এক হাজার ৭শ’। সৌদি আরবের একবারিয়া টেলিভিশন জানিয়েছে, দাহরানের কাছে শুক্রবার সন্ধ্যার পর এক হামলায় দুই সীমান্ত গার্ড নিহত হয়েছে।

মার্কিন সরকারী সূত্র বৃহস্পতিবার বলেছে, ওয়াশিংটন যদিও মনে করে যে, সৌদি আরব ও তার মিত্ররা সীমান্তে সৈন্য মোতায়েন করেছে। তারপরও এরকম কোন ইঙ্গিত নেই যে, রিয়াদ কোন পুরোমাত্রার আক্রমণ অভিযান অবিলম্বে শুরু করবে। এ লড়াইয়ের জন্য ইয়েমেন থেকে ওয়াশিংটন তাদের সামরিক স্টাফ তুলে নিয়েছে।