২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

আদভানিসহ ২০ বিজেপি নেতার নামে আদালতের নোটিস


জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ ভারতের ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলায় বর্তমান ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সিনিয়র নেতা এল কে আদভানি এবং অপর ১৯ জনের নামে নোটিস পাঠিয়েছে দেশটির সুপ্রীমকোর্ট। হাজী মাহবুব আহমেদ নামে এক ব্যক্তির পিটিশনের ভিত্তিতে এ নোটিস পাঠানো হয়। মঙ্গলবার হাইকোর্টের প্রধান বিচারপ্রতি ডি এল দাতুর নেতৃত্বাধীন একটি বেঞ্চ শুনানি শেষে এ নোটিস পাঠায়।

আদভানির পাশাপাশি মোদি সরকারের সিনিয়র মন্ত্রী উমা ভারতী, মুরলী মনোহর যোশি ও কল্যাণ সিংয়ের নামও রয়েছে। তবে মৃত্যুর কারণে অভিযুক্তদের তালিকা থেকে বাল ঠাকরের নাম বাদ দেয়া হয়েছে। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া ও বিবিসি অনলাইনের।

হাজী মাহবুবের আবেদনে বলা হয়, আদভানির দল বিজেপি ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের ক্ষমতায় থাকার কারণে সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (সিবিআই) তাদের মূল প্রতিবেদনে আদভানিসহ অন্যদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের পর্যাপ্ত তথ্য উপস্থাপন করেনি। মামলায় অভিযুক্ত রাজনাথ সিং বর্তমানে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। অপর এক অভিযুক্ত কল্যাণ সিং বর্তমানে রাজস্থানের গবর্নর। যদিও সিবিআই প্রধানমন্ত্রীর অধীনে কাজ করে, কিন্তু স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও এর নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের একটি। আবেদনকারী মাহবুবের অভিযোগ, রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে বাবরি মসজিদ প্রশ্নে কেন্দ্রের অবস্থান ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও প্রতিষ্ঠানগুলোর দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তিত হয়ে গেছে। সিবিআইয়ের চূড়ান্ত প্রতিবেদনে যতটা তথ্য-প্রমাণ থাকার কথা ছিল, তা সংযুক্ত হয়নি। মঙ্গলবার মাহবুবের পিটিশনের শুনানি শেষে সুপ্রীমকোর্ট তার আবেদন আমলে নিয়ে ষড়যন্ত্র মামলায় অভিযুক্তদের নোটিস জারি করার পাশাপাশি সিবিআইয়ের ওই প্রতিবেদনও পর্যালোচনা করা হবে বলে জানিয়ে দেয়। সেই সঙ্গে এলাহাবাদ হাইকোর্টে অভিযুক্তদের খালাস দেয়ার পর এ ব্যাপারে আপীল করতে কেন সময়ক্ষেপণ করা হলো, সে বিষয়েও জানতে চাওয়া হয় সিবিআইয়ের কাছে। এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে সংস্থাটিকে চার সপ্তাহের সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে।