১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

শেখ হাসিনা যাকে সমর্থন দেবেন তিনিই হবেন ১৪ দলের প্রার্থী


বিশেষ প্রতিনিধি ॥ ঢাকা উত্তর, দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে একক প্রার্থী সমর্থন দেবে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দল। এক্ষেত্রে ১৪ দলীয় জোটনেত্রী, প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা যাকে সমর্থন দেবেন, সেই হবেন ১৪ দলেরও একক প্রার্থী। আর সেই প্রার্থীর পক্ষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন ১৪ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা। মঙ্গলবার দুপুরে ধানম-িতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের বৈঠকে এ অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন নেতৃবৃন্দ।

বৈঠক শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, বিএনপি-জামায়াত আপাতত পিছু হটলেও চক্রান্ত এখনও অব্যাহত আছে। তাই সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐকমত্যের ভিত্তিতে নির্বাচন ও সংগ্রামের মাঠে একসঙ্গে থাকবে ১৪ দলীয় জোট। আর জনগণ ভোটের মাধ্যমে বিএনপি-জামায়াত জোটের চক্রান্তের জবাব দেবে। তিনি বলেন, আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে একক প্রার্থী হিসেবে শেখ হাসিনা যাকে সমর্থন দেবেন, তার পক্ষেই কাজ করবে ১৪ দলসহ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকল শক্তি।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, বিএনপি দ্বৈতনীতি গ্রহণ করছে। হরতাল-অবরোধ প্রত্যাহার করে নিয়ে আবার গায়েবি প্রেস রিলিজ দিয়ে হরতাল-অবরোধ ঘোষণা করেছে। এর মাধ্যমে প্রমাণিত তারা জনগণের শান্তিতে বিশ্বাস করে না। তিনি বলেন, তারা কোথায় থেকে এসব গায়েবি প্রেস রিলিজ পাঠায় তা কেউ জানে না। তারা কখন-কী করবে জনগণ জানে না। অবশ্য জনগণ ভয়কে জয় করেছে। তাদের ধ্বংসাত্মক কর্মসূচী দেশবাসী ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে। দেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আগামীতে সহিংসতা প্রতিহত করা হবে।

সূত্র জানায়, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ ঘোষিত একক প্রার্থীকে পূর্ণ সমর্থন দিয়েছে ১৪ দল। বৃহত্তর স্বার্থে জাসদের মেয়র প্রার্থী নাদের চৌধুরী তার প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেবেন বলে দলটির পক্ষ থেকে জানানো হয়। তবে ১৪ দলের শরিকরা একক কাউন্সিলর প্রার্থী করার ক্ষেত্রে তাদের দলের কয়েকটি প্রার্থী থাকার বিষয়টি তুলে ধরেন। এ সময় আওয়ামী লীগ নেতারা বলেন, আপনাদের কোথায় কোথায় কাউন্সিলর প্রার্থী তার একটি তালিকা দিন। তালিকাটি শেখ হাসিনার কাছে পাঠিয়ে দেয়া হবে। তারপর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। সিদ্ধান্ত হয়, আগামী দু’তিন দিনের মধ্যে শরিকদের একটি তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি এবং বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, সবার জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড থাকবে। কিন্তু সন্ত্রাসীদের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড হবে না। প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে।

বৈঠকে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের পক্ষ থেকে ব্লগার ওয়াশিকুর রহমান হত্যাকা-ের নিন্দা জানিয়ে দোষীদের গ্রেফতারের দাবি জানানো হয়। এছাড়া বৈঠকে বিএনপি-জামায়াত জোটের চলমান নৈরাজ্যের প্রতিবাদে আজ বুধবার গাইবান্ধার পলাশবাড়ি এবং পরবর্তীতে সাতক্ষীরায় ১৪ দলের সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, জাতীয় পার্টির (জেপি) প্রেসিডিয়াম সদস্য এজাজ আহমেদ মুক্তা, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডাঃ দীপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, জাসদের সাধারণ সম্পাদক শরিফ নূরুল আম্বিয়া, তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভা-ারী, বাসদের আহ্বায়ক রেজাউর রশিদ খান এবং কমিউনিস্ট কেন্দ্রের ডাঃ অসিত বরণ রায়।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: