২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ইয়াং লিডারশিপ নিয়ে এ্যালেক্স ম্যালি


অপরিচিত জায়গায় কাজ করতে গিয়ে বিভিন্ন সময় আমাকে বেশ বেগতিক পরিস্থিতির মধ্য পড়তে হয়েছে। তবে সেটাকে আমি নিয়েছিলাম নিজের সামর্থ্য যাচাই করার হাতিয়ার হিসেবে। চেষ্টা ও ইচ্ছাশক্তির কারণে আমি সকল পরিস্থিতিতে বেশ ভালভাবেই খাপ খাইয়ে নিতে পেরেছিলাম। এবং এর মধ্য দিয়েই একটা সময় আমি অভিজ্ঞ হয়েছি। তরুণ নেতা হওয়ার বিষয়ে বলতে গিয়ে এই কথা বলেছেন, অস্ট্রেলিয়ার সিপিএ’র প্রধান নির্বাহী এ্যালেক্স ম্যালি। ইয়াং লিডার হওয়া চাট্টিখানি কথা নয়। আবার খুব বেশি কঠিন তাও নয়। চারিত্রিক কিছু গুণাবলীই পারে একজন সফল তরুণ নেতা তৈরি করতে। নিজের জীবনের অভিজ্ঞতার আলোকে এ্যালেক্স ম্যালি তরুণ প্রজন্মকে সফল নেতৃত্ব দেয়ার জন্য পাঁচটি গুণের অধিকারী হতে বলছেন। সেগুলোই পাঠকের জন্য তুলে ধরা হলো।

নিজেকে জানো

সক্রেটিস বলেছিলেন, নিজেকে জানো। নিজেকে না জানলে, না চিনলে নেতা হওয়া যাবে না। তুমি কি, তোমার সবলতা কী কিংবা দুর্বলতা কোথায়Ñ এসব কিছুই সর্বাগ্রে তোমাকে চিহ্নিত করতে হবে। নেতৃত্ব দেয়ার প্রথম সোপানই হলো নিজেকে জানা। নিজের বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা না থাকলে অন্যদের নেতৃত্ব দেয়া যায় না। নিজেকেই নিজে প্রশ্ন করো। খুঁজে বের করো সবলতা আর দুর্বলতা। এবং আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠো।

তাড়নাকে গুরুত্ব দাও

কি, কিছুটা অদ্ভূতুড়ে শোনাল? বলতে চাচ্ছি তুমি যে কাজের প্রতি তাড়না অনুভব কর, যে কাজে সবচেয়ে বেশি আগ্রহ বোধ কর, সেদিকেই চোখ বন্ধ করে ঝুঁকে যাও। অন্যরা কে কি বলল তা নিয়ে না ভেবে তোমার ভাল লাগার কাজেই মনোনিবেশ করো। আমি এমন কোন নেতা দেখিনি যে কিনা তাড়না ছাড়াই নেতা হয়েছে। অনেকেই অবশ্য তাড়নার খোঁজ রাখে না। কিন্তু তোমাকে ভাল কিছু করতে হলে আগে অবশ্যই যাচাই করে নিতে হবে কোন কাজে

তোমার আগ্রহ বেশি। একটু চিন্তা করো। দেখবে তুমি হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি করতে পারবে কোন্ কাজে তোমার তাড়না আছে। তারপর সে তাড়নাকে গুরুত্ব দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড় কাজে।

শোনা এবং দেখা

তুমি যদি নেতা হতে চাও, তাহলে তোমাকে মানুষের কথা বেশি শোনার অভ্যাস তৈরি করতে হবে। অনেকেই কাজের চেয়ে বেশি কথা বলে। আমি বলি, তুমি বেশি না বলে বেশি শুনবে আর বেশি কাজ করবে। দেখবে তুমি গ্রহণযোগ্য নেতায় পরিণত হয়ে যাবে। আর হ্যা, আরেকটি ব্যাপার মাথায় রাখবে। সেটা হলো পর্যবেক্ষণ। তোমার চারপাশে যা কিছু ঘটছে এবং যাদের সঙ্গে কথা বলছ তাদের খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখবে। তুমি যদি নেতাদেরও নেতা হতে চাও, তাহলে তোমাকে অবশ্যই বেশি শোনা ও খুঁটিয়ে দেখার অভ্যাস তোমার ব্যক্তিত্বে নিয়ে আসতে হবে।

হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি

উত্তম নেতা হওয়ার জন্য তোমাকে অবশ্যই সহকর্মীদের প্রতি হৃদয়বান হতে হবে। তাদের সুখ-দুঃখ হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি করতে হবে। এতে তারা তোমার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকবে। এবং পরবর্তীতে তোমার কথা মতো কাজ করতে তারা বেশি আগ্রহী হবে। তাই তোমাকে ভাল নেতা হওয়ার জন্য সহকর্মীদের অবস্থা হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি করতে হবে।

সচেতনতা

তোমাকে অবশ্যই সচেতন হতে হবে। তা নিজের প্রতি, সহকর্মীদের প্রতি এবং কাজের প্রতি। সদা সতর্ক দৃষ্টি না রাখলে যে কোন সময় তুমি বিপদগ্রস্ত হয়ে পড়তে পারো। কোন্ কাজ করছ সেটার প্রভাব কেমন হতে পারে সে বিষয়ে ধারণা থাকতে হবে তোমার। খুব সচেতনভাবে পা ফেলতে হবে। কেননা ওঁতপেতে থাকতে পারে হাজারো বিপদযুক্ত খাদ, যেখান থেকে উঠে আসা কঠিনই বৈকি। মনে রেখ, সচেতন হওয়া ছাড়া তুমি যোগ্য নেতা হতে পারবে না।