১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

এএফসি যুব ফুটবল বাংলাদেশ-উজবেক লড়াই আজ


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সিরিয়ার মতোই শক্তিশালী দল ‘উজবেকিস্তান। কঠিন প্রতিপক্ষ। তবে তাদের সঙ্গে এর আগেও আমরা একাধিকবার খেলেছি। সর্বশেষ খেলেছি ইনচন এশিয়ান গেমসে। সেই খেলার অভিজ্ঞতাকেই কাজে লাগাতে চাই। আপ্রাণ চেষ্টা করব প্রতিপক্ষের কাছ থেকে পয়েন্ট ছিনিয়ে আনতে। গতকালের ম্যাচে উজবেকরা ভারতকে হারিয়েছে একেবারে শেষ মুহূর্তে দুই গোল করে। এ থেকে প্রমাণ হয় ফুটবলে যে কোন কিছুই ঘটা সম্ভব।’ কথাগুলো লোডভিক ডি ক্রুইফের, যিনি বাংলাদেশ অনুর্ধ-২৩ জাতীয় ফুটবল দলের হেড কোচ। ডাচ্ এই প্রশিক্ষক শনিবার বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) ভবনে অনুষ্ঠিত ‘ম্যাচ-পূর্ব’ সংবাদ সম্মেলনে আরও বলেন, ‘শুক্রবার আমরা প্রথম ম্যাচে সিরিয়ার কাছে বেশিরভাগ গোলই হজম করেছি সেটপিস থেকে। এক্ষেত্রে আমাদের ডিফেন্ডাররা ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। এই ভুলগুলো নিয়ে কাজ করছি, যেন এর পুনরাবৃত্তি উজবেকিস্তানের সঙ্গে পরের ম্যাচে না ঘটে।’ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে চলছে ‘এএফসি অনুর্ধ-২৩ চ্যাম্পিয়নশিপ বাছাইপর্বের ‘ই’ গ্রুপের খেলা। আজ সন্ধ্যা ৬টায় দ্বিতীয় ম্যাচে ‘বেঙ্গল টাইগার্স’ খ্যাত স্বাগতিক বাংলাদেশ যুবদল (ফিফা র‌্যাঙ্কিং ১৬২, এএফসি র‌্যাঙ্কিং ৩২) মুখোমুখি হবে ‘হোয়াইট উলভ্স’ খ্যাত উজবেকিস্তান যুবদলের (ফিফা র‌্যাঙ্কিং ৭২, এএফসি র‌্যাঙ্কিং ৬)। এ টুর্নামেন্টে স্বাগতিক বাংলাদেশের শুরুটা হয়েছে হার দিয়ে। প্রথম ম্যাচেই শক্তিধর ১৫২ র‌্যাঙ্কিংধারী ‘কাশিয়ান ঈগল্স’ খ্যাত সিরিয়া যুবদলের কাছে ৪-০ গোলে হেরেছে।

বিভিন্ন দেশে অনুুষ্ঠিত এই টুর্নামেন্টে সার্বিকভাবে ১০ গ্রুপে অংশ নেবে ৪৩ দেশ। প্রতি গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন দল এবং বিভিন্ন গ্রুপ মিলিয়ে ৫ সেরা রানার্সআপ দল আগামী ২০১৬ সালে কাতারে অনুষ্ঠিত এ আসরের মূলপর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে।

সম্প্রতি বাংলাদেশ প্রতিপক্ষের কাছে যেসব গোল খেয়েছে, তার নব্বই শতাংশই খেয়েছে ‘ডেড বল সিচুয়েশন’ বা ‘সেটপিস’ (ফ্রি কিক, ইনডাইরেক্ট ফ্রি কিক, কর্নার কিক) থেকে। এক্ষেত্রে কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়েছে গোলরক্ষক ও রক্ষণভাগকে। টুর্নামেন্ট শুরুর আগে জার্মানির ক্রিস্টিয়ান শোয়েচলারকে গোলরক্ষক কোচ হিসেবে আনা হয়। প্রথম ম্যাচেই গোলরক্ষক রাসেল মাহমুদ লিটন হজম করেছেন চার গোল! শনিবারের প্রি-ম্যাচ কনফারেন্সে শোয়েচলারকে সাংবাদিকদের তীর্যক প্রশ্নবাণ থেকে বাঁচানোর জন্যই কি না কে জানে, শোয়েচলারকে সেখানে দেখা যায়নি। তবে ঝাঁঝালো প্রশ্ন থেকে রেহাই পাননি দলের ডিফেন্ডার এবং অধিনায়ক রায়হান হাসান। তিনি আত্মপক্ষ সমর্থন করার চেষ্টা করেন এভাবে, ‘প্রথম ম্যাচের প্রথমার্ধে আমরা ভুল খেলেছি। বিশেষ করে প্রথম ১৫ মিনিট। তখনই দুই গোল খেয়ে আমরা নাভার্স হয়ে পড়ি। তারই প্রভাব পড়ে খেলায়। দ্বিতীয়ার্ধে কিছুটা ভাল খেলি। তবে গোলের সুযোগ পেয়েও তা কাজে লাগাতে পারিনি। আশা করি পরের ম্যাচে এমনটা হবে না। কোচ আমাদের সমস্যাগুলো নিয়ে কাজ করছেন। উজবেকিস্তানের বিরুদ্ধে এর আগে খেলেছি। শুক্রবার মাঠে থেকে তাদের খেলা দেখেছি। আশা করি তাদের বিরুদ্ধে আমরা ভালই খেলব।’ একই বক্তব্য ক্রুইফেরও, ‘শুরুর কয়েক মিনিটেই দুই গোল খেয়ে ছেলেরা আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলে। তাই এমন ফল বিপর্যয় হয়েছে।’

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: