১৯ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৭ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

আজ মনোনয়নপত্র দাখিল শেষ, সময় বাড়ছে না


স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঢাকা ও চট্টগ্রামের তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষদিন আজ রবিবার। বিকেল ৫টার মধ্যে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র দাখিল করতে হবে। আগামী বুধ ও বৃহস্পতিবার হবে বাছাইয়ের কাজ। এরপর আগামী ৯ এপ্রিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার শেষে আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচার শুরু হবে। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, মনোনয়নপত্র জমাদানের সময়সীমা বাড়ানো হচ্ছে না। কমিশন ঘোষিত তফসিলের অন্যান্য সময়সীমাও অপরিবর্তিত থাকছে। ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ রিটার্নিং কর্মকর্তার অফিস থেকে জানানো হয়েছে, আজ বিকেল ৫টার মধ্যে সব প্রার্থীকে মনোনয়নপত্র জমা দিতে হবে। তবে ৫টার মধ্যে যেসব প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমাদানের জন্য রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে হাজির হবেন তাদের প্রত্যেকের মনোনয়নপত্র জমা নেয়া হবে।

এদিকে মেয়র, কাউন্সিলর, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে শনিবার পর্যন্ত ২ হাজার ৩৭৮ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও উল্লেখযোগ্য কোন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেননি। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণের রিটার্নিং অফিস সূত্রে জানা গেছে, এখন পর্যন্ত মেয়র পদে ৭ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৫৫ জন এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ২০ জন প্রার্থী তাঁদের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। অথচ উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে এ পর্যন্ত ৫৮ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১ হাজার ৯৫১ জন এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৩৬৯ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। শনিবার ঢাকার দক্ষিণ থেকে মেয়র পদে কোন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেনি। তবে ঢাকার উত্তর থেকে মেয়র পদে শনিবার আরও দু’জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। এর মধ্যে গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জুনায়েদ সাকি রয়েছেন।

ঢাকা উত্তরের নির্বাচনী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম জানান, শনিবার পর্যন্ত উত্তরের নির্বাচনের জন্য মেয়র পদে মোট ২৮ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। এর মধ্যে মাত্র তিনজন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছে। তবে আওয়ামী লীগ বা বিএনপি সমর্থিত বা অন্য কোন দলের উল্লেখযোগ্য প্রার্থী পর্যন্ত মনোনয়নপত্র জমা দেননি। শনিবার গণসংহতি আন্দোলনের নেতা জুনায়েদ সাকিসহ দু’জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। তিনি জানান, কাউন্সিলর পদে উত্তর থেকে এ পর্যন্ত ৮২৩ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। এর মধ্যে জমা দিয়েছে মাত্র ৭৪ জন প্রার্থী। অপরদিকে সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১৬১ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। এর মধ্যে জমা দিয়েছেন মাত্র ৭ জন।

ঢাকা দক্ষিণের নির্বাচনী অফিসের কর্মকর্তা নওয়াবুল ইসলাম বলেন, দক্ষিণের মেয়র পদে এ পর্যন্ত মনোনয়নপত্র নিয়েছেন ৩০ জন। এর মধ্যে জমা দিয়েছেন ৪ জন। সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১ হাজার ১২৮ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। জমা দিয়েছেন ৭৭ জন প্রার্থী। অপরদিকে সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ২০৮ জন প্রার্থী ফর্ম সংগ্রহ করলেও জমা দিয়েছেন ১৩ জন।

এদিকে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশ নিতে মেয়র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জুনায়েদ সাকি। শনিবার বিকেল পৌনে পাঁচটায় গণসংহতি আন্দোলনের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে নিয়ে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন তিনি। তিনি বলেন, দল থেকে সিদ্ধান্ত নিতে দেরি হওয়ায় শেষ মুহূর্তে এসে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছি।

এদিকে ঢাকা উত্তরে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন সিপিবির প্রার্থী আবদুল্লাহ কাফি রতন। তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে আগারগাঁও রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে তার মনোনয়নপত্র জমা দেন।

তবে দলীয় প্রধান হিসেবে আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে শেখ হাসিনার ওই বৈঠককে আচরণবিধির লঙ্ঘন হিসেবে মনে করছেন ইসি। ইসি সচিব সিরাজুল ইসলাম বলেন, আচরণবিধি লঙ্ঘনের কোন ঘটনা ঘটলে তাতে কোন ধরনের ছাড় না দেয়ার অবস্থান ইসির রয়েছে বলে জানান তিনি। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের নির্বাচনের বিষয়ে বলেন, দলীয়ভাবে কিছু করার সুযোগ নেই। দলীয়ভাবে প্রচারণার সুযোগ নেই। এটা নির্দলীয় নির্বাচন। তবে নির্বাচনের সঙ্গে রাজনীতি থাকে উল্লেখ করেন তিনি। বলেন, কোথাও কোথাও আচরণবিধির ব্যত্যয় ঘটবে। কিন্তু এ বিষয়ে ইসি বসে নেই। যারা আচরণবিধি ভাঙছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। সব প্রার্থীর জন্য সমান সুযোগ তৈরির বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের ইসি নির্দেশনা দিয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে ঢাকা উত্তরের রিটার্নিং কর্মকর্তা মোঃ শাহ আলমও বলেন, আচরণবিধি লঙ্ঘনের ক্ষেত্রে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। ইতোমধ্যে ২৩ জনকে নোটিস দিয়েছি। দু’জন নির্বাহী হাকিম ঘুরছেন, আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেবেন। নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করতে ইসির আকাক্সক্ষা বাস্তবায়নে সব প্রার্থীকে আচরণবিধি মেনে চলার অনুরোধ জানান।

এদিতে ঢাকা দক্ষিণের রিটার্নিং কর্মকর্তা মিহির সারোয়ার মোর্শেদ ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বজায় রাখতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের আগাম প্রচার না করার জন্য অনুরোধ করেছেন। তিনি বলেন, নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে শনিবার ১০ প্রার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিস পাঠানো হয়েছে। অনেক প্রার্থী আগাম প্রচার চালাচ্ছেন। যেগুলো আচরণবিধির লঙ্ঘন। প্রার্থীদের আচরণবিধি মেনে চলার ওপরই নির্বাচনের শৃঙ্খলানির্ভর করে। তিনি বলেন, আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে এ পর্যন্ত ৭৮ জনকে কারণ দর্শানোর নোটিস দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে আজকে ১০ জনকে নোটিস পাঠানো হয়েছে। তাদের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: