২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

মুজাহিদের নামফলক ভাংচুর


বিডিনিউজ ॥ স্বাধীনতা দিবসে মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের নাম লেখা একটি ফলক ভাংচুর করেছে কিশোরগঞ্জ ছাত্রলীগ। বৃহস্পতিবার বেলা এগারোটার দিকে শহরের গাইটাল এলাকায় সরকারী বালিকা শিশু পরিবার ভবনের ওই নামফলকের অংশবিশেষ ভেঙ্গে যুদ্ধাপরাধী মুজাহিদের নাম তুলে ফেলেন তারা। জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি শফিকুল গণি ঢালি লিমন ও সাধারণ সম্পাদক আশরাফ আলীর নেতৃত্বে প্রায় ৫০ নেতাকর্মী একাত্তরের বদর নেতার নাম উঠিয়ে দেয়ার কাজে অংশ নেন।

একাত্তরে বাঙালীর স্বাধীনতার পথ রুদ্ধ করতে সাংবাদিক, শিক্ষকসহ বুদ্ধিজীবী হত্যা ও সাম্প্রদায়িক হত্যা-নির্যাতনের দায়ে জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল মুজাহিদকে গত বছরের ১৭ জুলাই মৃত্যুদণ্ড দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২।

অপহরণ, নির্যাতন, হত্যাসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের সাতটি অভিযোগের মধ্যে পাঁচটি ঘটনায় মুজাহিদের সংশ্লিষ্টতা প্রমাণিত হওয়ায় তাকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার আদেশ দেয়া হয় রায়ে। সেনাশাসক জিয়াউর রহমানের আমলে বাংলাদেশের রাজনীতিতে পুনর্বাসিত মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী দল জামায়াতে ইসলামী ২০০১ সালে বিএনপি নেতৃত্বাধীন সরকারের অংশীদার হয়, যেখানে মুজাহিদকে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেয়া হয়। মন্ত্রী থাকাকালে ২০০৬ সালের ১৭ জুন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সাবেক শিক্ষামন্ত্রী এম ওসমান ফারুকের সঙ্গে যৌথভাবে কিশোরগঞ্জ শিশু পরিবারের ওই নতুন ভবন উদ্বোধন করেন আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ।

প্রস্তরফলকে যুদ্ধাপরাধী মুজাহিদের নামের অংশ ভেঙ্গে দেয়া হলেও এম ওসমান ফারুকের নাম লেখা অংশটি অক্ষত রয়েছে। এই অংশে কোন ভাংচুর করেননি ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।

এ ব্যাপারে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শফিকুল গণি ঢালি লিমন বলেন, কিশোরগঞ্জের মাটিতে কোন রাজাকারের নাম থাকতে দেয়া হবে না।