১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ময়মনসিংহে রাজু-সাদেক বাহিনীর কাছে স্থানীয়রা জিম্মি


স্টাফ রিপোর্টার, ময়মনসিংহ ॥ ময়মনসিংহ সদরের দাপুনিয়া ইউনিয়নের আজমতপুর গ্রামবাসী রাজু ও সাদেক বাহিনীর কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে। এই বাহিনীর দাপটে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে গ্রামবাসী। অভিযোগ রাজু ও সাদেকের নেতৃত্বে এলাকার নয়ন, রাজন, ফারুক ও বিল্লাল বাহিনী এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে রেখেছে। চাঁদাবাজি, জমি দখল ও জুয়ার আসর বসিয়ে এই বাহিনী কাঁচা অর্থ হাতিয়ে নিলেও এলাকাবাসী প্রতিবাদ করতে পারছে না।

স্থানীয় সূত্র জানায়, আজমতপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলামের কাছ থেকে গত জানুয়ারি মাসে ১৬ দশমিক ৬৬ শতাংশ জমি কিনে বালু ভরাট করেন একই গ্রামের রুস্তম আলী। অন্যায়ভাবে লাভবান হওয়ার আশায় রাজু ও সাদেক বাহিনীর সদস্যরা ফেব্রুয়ারি মাসে আজমতপুর গ্রামের রুস্তম আলীর সাফকবলা মূলে কেনা জমিতে দিনে দুপুরে পাকা খুঁটি পুঁতে জবরদখল করে রেখেছে। স্থানীয়দের দাবি, জবরদখল করা জমির মালিকানার ওপর রুস্তম ও সাদেকের কোন বৈধ কাগজপত্র নেই।

দাপুনিয়া ইউনিয়নের সাবেক মেম্বর নজরুল ইসলাম জানান, এই জমির প্রকৃত মালিক রুস্তম আলী। এই জমির বিক্রেতা সিরাজুল ইসলামের বিধবা ভাবী সাহারা বানুর কাছ থেকে কথিত বায়না দলিল মূলে এখন এর মালিকানা দাবি করছে রাজু সাদেক বাহিনী। অথচ সাহারা বানুর কোন মালিকানা কিংবা দখল নেই এই জমিতে দাবি স্থানীয় বাসিন্দা নূর ইসলামের। এলাকাবাসী জানায়, মোটা অঙ্কের চাঁদার আশায় রুস্তম আলীর জমির একটি অংশে পাকা খুঁটি পুঁতে জবরদখল করে রেখেছে রাজু ও সাদেক বাহিনী। গত ৮ মার্চ ময়মনসিংহের কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশকে বিষয়টি জানান হয়েছে। কোতোয়ালি মডেল থানার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শাহেদ আল মামুন দুই দফায় দুই পক্ষকে ডেকে কাগজপত্র চাইলেও রাজু ও সাদেক বাহিনীর সদস্যরা সাড়া দেয়নি। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। বিল্লাল ড্রাইভার অভিযোগ অস্বীকার করে জানায়, বায়নামূলে জমির একাংশের মালিক তারা এবং মালিকানার অংশেই পাকা খুঁটি পোঁতা হয়েছে।