২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

অপহৃত কৃষক উদ্ধার ॥ মহিলা গ্রেফতার


সংবাদদাতা, নাটোর, ২৪ মার্চ ॥ রাজশাহীর অপহৃত আবুল কাসেমকে নাটোর থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় অপহরণকারী দলের নারী সদস্য মুন্নি বেগমকে আটক করা হয়েছে। আটক মুন্নি নাটোরের আমহাটি এলাকার ফরহাদ আলীর স্ত্রী। জানা গেছে, রাজশাহীর পবা থানার বাতাশ মোল্লা গ্রামের জালাল উদ্দিন সরকারের ছেলে কৃষক আবুল কাশেম সোমবার দুপুরে ঢাকা থেকে রাজশাহী যাওয়ার পথে তার জনৈক এক বন্ধুর সঙ্গে দেখা করার জন্য নাটোর শহরের মাদ্রাসা মোড়ে নামেন। এ সময় অপহরণকারীরা সেখান থেকে তাকে সিএনজিতে তুলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গিয়ে তার কাছে থাকা ২০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এরপরে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আবুল কাশেমের পরিবারের কাছে মুক্তিপণ হিসেবে দাবিকৃত ৫ লাখ টাকার মধ্যে মোবাইল বিকাশ মারফত দেড় লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় অপহরণকারীরা। খবর পেয়ে সোমবার রাতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে শহরের স্টেশন বাজার এলাকা থেকে আবুল কাসেমকে উদ্ধার করে। পরে তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী শহরের আমহাটি এলাকার একটি বাড়ি থেকে মুন্নি বেগম নামে অপহরণকারী দলের এক নারী সদস্যকে আটক করা হয়।

মাদ্রাসা ছাত্র উদ্ধার ॥ আটক এক

নিজস্ব সংবাদদাতা, কচুয়া, চাঁদপুর থেকে জানান, কচুয়ায় অপহরণের ৭ দিন পর সাইফুল ইসলাম (১১) নামে মাদ্রাসা ছাত্র উদ্ধার করেছে কচুয়া থানা পুলিশ । সোমবার রাতে কুমিল্লা তিতাস উপজেলার বালিয়াকান্দি গ্রাম থেকে মোবাইল ট্যাকিংয়ের মাধ্যমে তাকে উদ্ধার করে এবং লোকমান হোসেন (৪০) নামে অপহরণকারীকে গ্রেফতার করা হয়। জানা গেছে, ১৭ মার্চ সাইফুল ইসলাম তার বাবার সঙ্গে অভিমান করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়। সে বাসযোগে কুমিল্লা বিশ্ব রোডের জাঙ্গালিয়া এলাকায় নামলে চৌদ্দগ্রাম উপজেলার মৃত মান্নানের ছেলে মাধাইয়া সোনাপুর মাদ্রাসার টাকা সংগ্রহকারী লোকমান হোসেন ছাত্র সাইফুল ইসলামকে কুমিল্লা জেলার তিতাস উপজেলার বালিয়াকান্দি তার শ্বশুরবাড়িতে আটকিয়ে রাখে এবং মুক্তিপণ দাবি করে। মঙ্গলবার অপহরণকারী লোকমান হোসেনকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

চকরিয়ার হানিফ পেলেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা

কুমিল্লায় পেট্রোলবোমায় দগ্ধ

স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার ॥ কাতারগামী বড়ভাইসহ নিকট আত্মীয়দের বিমানে তুলে দিতে রাতে ঢাকা যাওয়ার পথে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে যাত্রীবাহী বাসে দুর্বৃত্তদের পেট্রোলবোমা হামলায় অগ্নিদগ্ধ কক্সবাজারে চকরিয়ার মোহাম্মদ হানিফের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ত্রাণ তহবিলের অনুদানের ১০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র। ৩ ফেব্রুয়ারি রাতে পেট্রোলবোমায় দগ্ধ হয়ে মারা যাওয়া হতভাগা ব্যক্তিদের সঙ্গে হানিফও একই চেয়ারকোচের যাত্রী ছিলেন। এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা এটিএম জিয়াউদ্দিন চৌধুরী, দলিলুর রহমান, আবদুল মন্নান, উপস্থিত ছিলেন। ওই সময় পেট্রোলবোমায় নিহত হানিফের বড়ভাই মোহাম্মদ ইউছুপ, নিকট আত্মীয় আবু তাহের ও রাশেদুল ইসলাম বাদশার পরিবার এখনও চেক পায়নি বলে জানা গেছে।