২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

নেতিবাচক অবস্থান থেকে সরে আসতে চাইছে বিএনপি


স্টাফ রিপোর্টার ॥ চলমান নেতিবাচক কর্মসূচী থেকে বের হওয়ার চেষ্টা করছে বিএনপি। এরই অংশ হিসেবে স্বাধীনতা দিবসের কর্মসূচী পালন করতে ৭২ ঘণ্টা হরতাল শেষে টানা অবরোধ অব্যাহত রাখলেও এ সপ্তাহে আর নতুন করে হরতাল পালন করবে না বিএনপি। এর ফলে বুধবার থেকে এ সপ্তাহে আর হরতাল থাকছে না। তবে এর মধ্যে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হলে নির্বাচন শেষ না হওয়া পর্যন্ত আর হরতাল দেবে না বিএনপি। আর কোন কারণে নির্বাচনে অংশ না নিলে রবিবার থেকে ফের হরতাল পালনের ঘোষণা দিতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

হরতাল-অবরোধ স্থগিত করার বিষয়ে এখন কোন ঘোষণা না দিলেও রবিবার স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচী পালনের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। বিকেলে বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ কর্মসূচী পালনের ঘোষণা দেয়া হয়। ঘোষিত স্বাধীনতা দিবসের কর্মসূচী অনুসারে ২৪ মার্চ বিকেল তিনটায় জাতীয় প্রেসক্লাবে আলোচনা সভা, ২৬ মার্চ সকাল আটটায় সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধ এবং সকাল দশটায় শেরেবাংলানগরে জিয়াউর রহমানের মাজারে শ্রদ্ধা নিবেদন করবে বিএনপি। এ কর্মসূচী পালন করতে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান হয়েছে।

উল্লেখ্য, শনিবার বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব বরকত উল্লাহ বুলুর নামে পাঠানো এক গায়েবি বিবৃতিতে টানা অবরোধের মধ্যেই রবিবার সকাল ছয়টা থেকে বুধবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত সারাদেশে হরতাল পালনের ঘোষণা দেয়া হয়।

এদিকে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে নানামুখী হিসেব-নিকেশ করছে বিএনপি। নির্বাচনে অংশ নিলে কি লাভ এবং না নিলে কি ক্ষতি তা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে দলীয় হাইকমান্ড। তাই এখনও তিন সিটি কর্পোরেশনে প্রার্থী চূড়ান্ত করেনি। তবে পরিবেশ পরিস্থিতি অনুকূলে মনে করলে যে কোন সময় দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করে নির্বাচনের মাঠে নেমে যাবে বিএনপি। আর প্রতিকূল মনে করলে নির্বাচন বর্জনও করতে পারে বিএনপি। সবকিছু নির্ভর করছে দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ওপর। তাই দলীয় প্রার্থীরা তাদের দিকে তাকিয়ে আছেন।

নেওয়াজ আলীর বাসা থেকে ককটেল উদ্ধারের ঘটনায় মহানগর বিএনপির নিন্দা ॥ যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজের বাসা থেকে ককটেল ও বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধারের ঘটনায় ঢাকা মহানগর বিএনপি নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে। রবিবার বিকেলে ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস ও সদস্য সচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের নামে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ প্রতিবাদ জানান হয়। এতে বলা হয়, নেওয়াজ আলীকে রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এবং পুলিশী হয়রানির উদ্দেশে তার ভাড়া দেয়া বাসায় ককটেল ও বিস্ফোরক দ্রব্য রেখে তাকে ফাঁসানোর অপতৎপরতা চালানো হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে সে বাসাতে নেওয়াজ আলী থাকেই না।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: