১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৬ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

একপেশে হয়ে পড়ছে ওয়ানডে ক্রিকেট ॥ এ্যামব্রোস


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ওয়ানডে ক্রিকেটটা দিন দিন এখন ব্যাটসম্যানদের দখলে চলে যাচ্ছে। তা বুঝতেছেন সাবেক ক্রিকেটাররা। যেমন বুঝলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক কিংবদন্তি তারকা কার্টলি এ্যামব্রোসও। এ্যামব্রোস মনে করেন, ‘আইসিসির নতুন বিধিমালা ব্যাট-বলের লড়াইকে নষ্ট করছে এবং বোলারদের আধিপত্য বৃদ্ধি করছে। খেলাটা দিন দিন একপেশে হয়ে পড়ছে এবং ব্যাট-বলের লড়াইটা আগের মতো তীব্র হচ্ছে না। কেননা, আইসিসির বিধিমালা ব্যাটসম্যানদের অতিমাত্রায় সুযোগ ও স্বাধীনতা দিয়েছে। ম্যাচে বোলারদের ভূমিকা হ্রাস পাচ্ছে। দ্রুত হয় তো তারা বোলিং মেশিনে পরিণত হবে।’

তিনি বলেন, ‘সবকিছুই ব্যাটসম্যানদের অনুকূলে কাজ করছে। বোলারদের জন্য কিছু থাকছে না। একজন বোলার দলের জন্য নিজের সেরাটা দিতে কঠোর পরিশ্রম করেন। তবে ফ্রি-হিট এবং ব্যাটিং পাওয়ার প্লে’র কারণে সেটা সম্ভব হয়ে উঠছে না। আমি এসবের পক্ষে নই।’ তিনি আরও বলেন, ‘একজন বোলার হিসেবে আমার বিশ্বাস, যদি কেউ ভাল বোলিং করে তবে সে ব্যাটসম্যানদের ওপর চাপ তৈরি করতে পারবে এবং রানের চাকা আটকে রাখতে পারবে। আর এখন ব্যাটসম্যানরা পাওয়ার প্লে’র সুযোগ কাজে লাগিয়ে দ্রুত রান তুলছে।’ বিশ্বের সর্বকালের অন্যতম সেরা গতিদানব কথা বলেন ‘সেøজিং’ নিয়েও। ৬ ফুট ৭ ইঞ্চি উচ্চতার এই এন্টিগুয়ান তারকা মনে করেন, ‘কখনও ক্রিকেটের অংশ হতে পারে না ‘সেøজিং’। আমি ‘সেøজিংয়ে’ বিশ্বাস করি না। এটি ক্রিকেটের কোন অংশই না। যদি আপনি ভাল খেলোয়াড় হন তবে মাঠে আপনি বল বা ব্যাট দিয়ে কথা বলবেন। কথার তুবড়ি ছুটানোর কোন দরকার হবে না আপনার।’ এ সময় নিজ দল ওয়েস্ট ইন্ডিজ নিয়েও বলেন এ্যামব্রোস। আজ কোয়ার্টার ফাইনালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচকে সামনে রেখে জানান, ‘আমাদের দলে কিছু বিপজ্জনক খেলোয়াড় রয়েছে। তবে এটি নির্ভর করে আমরা মাঠে কী করতে পারব সেটির ওপর। যদি আমরা শুরুটা ভাল করতে পারি, আমাদের সামর্থ্যরে সেরা খেলাটা খেলতে পারি, তবে আমার বিশ্বাস, তাদের (নিউজিল্যান্ডকে) আমরা হারাতে পারব।’

১৯৮৮-২০০০ সাল পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে খেলেছেন কার্টলি এ্যামব্রোস। ১৭৬ ওয়ানডেতে ২৪.১৩ গড়ে ২২৫ উইকেট লাভ করেন তিনি। ওভারপ্রতি রান দিয়েছেন ৩.৪৮। ৯৮ টেস্টে ২০.৯৯ গড়ে ৪০৮ উইকেট লাভ করে টেস্ট ক্রিকেটের সর্বকালের সেরা বোলারদের তালিকায় স্থান করে নেন এন্টিগুয়ায় জন্ম নেয়া এই পেসার।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: