১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

পুঁজিবাজারে তিন চতুর্থাংশ কোম্পানির দরপতন


অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ সূচকের মাঝারি ধরনের পতন দিয়ে দেশের উভয় পুুঁজিবাজারে লেনদেন শেষ হয়েছে। রাজনৈতিক অস্থিরতা আগের তুলনায় কমে যাওয়ার পরেও শুধু বিনিয়োগকারীদের আস্থা কমে যাওয়ার কারণেই বাজারে এই দরপতন। প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে তিন চতুর্থাংশ বা ৭৫ ভাগ কোম্পানির দরপতনের দিনে সার্বিক সূচকের পতন ঘটেছে ১ দশমিক ২ শতাংশ। তবে দরপতনের মাঝেও সেখানে আগের দিনের তুলনায় লেনদেন কিছুটা বেড়েছে। ঢাকার বাজারের মতো অপর বাজারে ঢালাওভাবে সব ধরনের সূচক কমেছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, আগের দিনের ধারাবাহিকতায় সকালে সূচকের নেতিবাচক প্রবণতা দিয়ে লেনদেন শুরু হয়। শুরুতে সূচকের পতন কমার কারণে লেনদেনের গতিও কিছুটা কম ছিল। কিন্তু বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আরও কিছুদিন দরপতন চলতে পারে এমন আশঙ্কার কারণে কিছু বিনিয়োগকারীদের শেয়ার দ্রুত বিক্রির আদেশ দিতে পারে। ফলে দিনশেষে কিছুটা শেয়ার ক্রয়-বিক্রয় বেড়েছে। ডিএসইতে ২৮৯ কোটি ৭১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিনের চেয়ে ৩৫ কোটি ৯৮ লাখ টাকা বেশি। আগের দিন এ বাজারে লেনদেন হয়েছিল ২৫৩ কোটি ৭৩ লাখ টাকার শেয়ার।

সোমবার ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয় ৩০৬টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এরমধ্যে দর বেড়েছে ৫৩টি, কমেছে ২২৯টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টি কোম্পানির শেয়ার দর। সকালে সূচকের পতন কিছুটা কম হলেও দিনশেষে ডিএসইএক্স বা প্রধান মূল্য সূচক ৫৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৪ হাজার ৪৪৭ পয়েন্টে। ডিএস৩০ সূচক ১৭ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৬৯১ পয়েন্টে। ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ১৩ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে এক হাজার ৯০ পয়েন্টে।

ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা দশ কোম্পানি হচ্ছে: গ্রামীণফোন, শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানি, ইফাদ অটোস, সামিট এ্যালায়েন্স পোর্ট, এসিআই লিমিটেড, শাশা ডেনিমস, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড, এমজেএল বাংলাদেশ এবং সিঙ্গার বাংলাদেশ।

ডিএসইর দরবৃদ্ধির সেরা কোম্পানিগুলো হলো : রেকিট বেনকিজার, ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড, এ্যাটলাস বাংলাদেশ, সোনালী আঁশ, স্টাইল ক্রাফট, জাহিন টেক্সটাইল, এসআইবিএল, গ্রামীণফোন, বার্জার পেইন্টস ও রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্স।

দর হারানোর সেরা কোম্পানিগুলো হলো : সিঙ্গার বিডি, ট্রাস্ট ব্যাংক, আল আরাফাহ ব্যাংক, সাউথ ইস্ট ব্যাংক, সমতা লেদার, ইমাম বাটন, ডাচ্্ বাংলা ব্যাংক, শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক ও ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্স।

এদিকে ঢাকার মতো দেশের অপর পুঁজিবাজারে সব ধরনের সূচকই কমেছে। সেখানেও বিনিয়োগকারীদের মাঝে এক ধরনের হতাশা দেখা গেছে। যার কারণে রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে সেখানেও ৭০ ভাগ কোম্পানির দর কমেছে। সারাদিনে সিএসইতে ২২ কোটি ৬৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। সিএসই সার্বিক সূচক ১৪৫ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৩ হাজার ৭১৭ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৩১টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৪৬টির, কমেছে ১৬২টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৩টির।

সিএসইর লেনদেনের সেরা কোম্পানিগুলো হলো : জিপিএইচ ইস্পাত, ন্যাশনাল ফিড, গ্রামীণফোন, শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, শাশা ডেনিমস, সিঙ্গার বিডি, সামিট পোর্ট এ্যালায়েন্স, ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড, বেক্সিমকো ও ইফাদ অটোস।