২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

সৌরভ ছড়াচ্ছেন সৌম্য


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ একটি মাত্র আন্তর্জাতিক এক দিনের ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা নিয়ে বিশ্বকাপে যাত্রা শুরু করেন সৌম্য সরকার। তবে শুরুতে নিষ্প্রভ থাকলেও ক্রমেই নিজেকে মেলে ধরছেন তরুণ প্রতিভাবান এই ক্রিকেটার। শুক্রবার গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচেই ক্যারিয়ারের প্রথম অর্ধশতকের দেখা পান তিনি। হ্যামিলটনে এদিন ৫৮ বলে ৭ চারের সৌজন্যে ৫১ রান করে ড্যানিয়েল ভেট্টরির বলে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি। গত সপ্তাহে ইংল্যান্ডকে হারিয়েই বিশ্বকাপের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো কোয়ার্টার ফাইনালের টিকেট নিশ্চিত করে বাংলাদেশ। যে কারণে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচটি ছিল নিয়মরক্ষার। সেই সঙ্গে বাংলাদেশ যে ধারাবাহিকভাবে ভাল খেলতে পারে সেই কথাটা বিশ্বকে জানিয়ে দেয়ারও। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে গ্রুপের শেষ ম্যাচের শুরুটা মোটেও ভাল করতে পারেনি টাইগাররা। দলীয় ৪ রানে ইমরুল কায়েসের পর ২৭ রানে তার পথ ধরেন আরেক উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিম ইকবালও। উদ্বোধনী জুটির বিদায়ের পরই ক্রিজে নামেন সৌম্য সরকার। আর সেই কঠিন সময়েই নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর রাখলেন ২৫ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডার। ২০১০ সালে অনুর্ধ ১৯ বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো আলোচনায় আসেন সৌম্য সরকার। এর তিন বছর পর প্রথমবারের মতো টি-২০ দলে খেলার ডাক পান তিনি। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সেই সিরিজের এক ম্যাচেও খেলার সুযোগ হয়নি তাঁর। তারপরও হাল না ছেড়ে কঠোর অণুশীলন করে যান সৌম্য। ২০১৪ সালের মে মাসে বাংলাদেশের কোচ হিসেবে নিয়োগ পান শ্রীলঙ্কার চন্দিকা হাতুরাসিংহে। এরপরই তাঁর চোখ যায় সৌম্য সরকারের দিকে। গত বছরের ডিসেম্বরে জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে একদিনের ম্যাচে অভিষেক ঘটে তাঁর। বোলার হিসেবে অভিষেক ম্যাচে নিজেকে প্রমাণের সুযোগ পাননি তিনি। ব্যাটসম্যান হিসেবে জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে অভিষেক ম্যাচে ১৮ বলে ২০ রান করেন সৌম্য সরকার। স্বপ্নের বিশ্বকাপের বিশাল মঞ্চে লড়াইয়ের আগে এই ২০ রানই ছিল সৌম্যের সম্বল। একাদশতম বিশ্বকাপে আফগানিস্তানের বিপক্ষে অভিষেক তাঁর। প্রথম ম্যাচে তাঁর ব্যাট থেকে আসে ২৮ রান। দ্বিতীয়টিতে ২৫ করলেও তিন নম্বর ম্যাচে আউট হন ২ রানে। কিন্তু ক্যারিয়ারের চতুর্থ ম্যাচে ইংলিশদের বিপক্ষে তার ব্যাট থেকে আসে ৪০ রান। যা কোয়ার্টার ফাইনালের ভিত্তি গড়তে সহায়ক ভূমিকা হিসেবে কাজ করে। পারফর্মেন্সের এমন ধারাবাহিকতা শুধু গ্রুপ পর্বেই নয় বরং পরবর্তী সময়েও ধরে রাখতে সৌম্য সরকার মরিয়া।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: