২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৩ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

স্ফিংকস ধ্বংসের আহ্বান


সিরিয়া ও ইরাকের জঙ্গী সংগঠন আইএস সম্প্রতি ইরাকের প্রাচীন সভ্যতার বেশকিছু মূর্তি ও নিদর্শন ধ্বংস করে। বিশ্ব ইতিহাসের অংশ এসব পুরাকীর্তি ধ্বংসের প্রতিবাদে বিশ্ববাসী যখন সোচ্চার, ঠিক সেই মুহূর্তে কুয়েতের একজন ধর্মীয় নেতা মুসলিমদের আহ্বান জানান মিসরের পিরামিড ও স্ফিংকস ধ্বংসের। ইব্রাহিম আল কান্দারি নামের কুয়েতী এ ধর্মীয় নেতা বলেন, মুসলিমদের উচিত ফেরাউনের সকল নিদর্শন মুছে ফেলা। গত সপ্তাহে আইএস জঙ্গীরা প্রাচীন আসারিয়ান সভ্যতার বেশকিছু নিদর্শন ধ্বংস করে। মসুলের নিকটবর্তী শহর নমরুদের অবশিষ্ট পুরাকীর্তি লুট করার পরাশাপাশি গুঁড়িয়ে দেয়। আইএস জঙ্গীদের মতোই তালেবান ২০০১ সালে আফগানিস্তানে দুটি বুদ্ধমূর্তি ধ্বংস করে এবং ভিডিও ধারণ করে তা প্রচার করে। মিসরের আরেক ধর্মীয় নেতা ২০১২ সালে স্ফিংকস ধ্বংসের আহ্বান জানিয়ে ফতোয়া দিয়েছিলেন। মিসরের পর্যটক মন্ত্রণালয় কুয়েতী ধর্মীয় নেতার এমন আহ্বানের নিন্দা জানিয়ে বলেন, এসব পুরাকীর্তি মিসরের প্রাচীন সভ্যতা ও ইতিহাসের অংশ ও ঐতিহ্য। স্ফিংকসের নাক ধ্বংসের বহু গল্প প্রচলিত। অনেকেই এ নাক ধ্বংসের জন্য নেপোলিয়ানের কামানের গোলাকে দায়ী করেন আবার অনেকের অভিমত, ১৪০০ শতাব্দীর সুফি সায়ম আল দ্বার যখন জানতে পারেন মিসরের বহু কৃষক স্ফিংকসের পূজা করে, তখন তিনি তা ধ্বংস করেছিলেন।

চলমান ডেস্ক