১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ডিসিসি নির্বাচনে দুই মেয়র প্রার্থীর নাম ঘোষণা করল জাপা


স্টাফ রিপোর্টার ॥ আসন্ন ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে সরগরম হয়ে উঠছে ঢাকা মহানগর। আওয়ামী লীগ ইতোমধ্যে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে তাদের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে। এবার জাতীয় পার্টিও তাদের প্রার্থীর মনোনয়ন চূড়ান্ত করেছে। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে বাহাউদ্দিন বাবুল এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে হাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলনকে প্রার্থী ঘোষণা করেছে জাতীয় পার্টি।

রবিবার দুপুরে বনানী কার্যালয়ে জাতীয় পার্টির যৌথসভায় দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এ ঘোষণা দেন। জাতীয় পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর সভাপতিত্বে যৌথসভায় উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, সুনীল শুভরায়, যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ২০০২ সালের ২৭ এপ্রিল নির্বাচনের পর ২০০৭ সালের ১৪ মে অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের মেয়াদ শেষ হয়। এরপর সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার এবং আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের সময় দুই দফায় ডিসিসি নির্বাচনের উদ্যোগ নেয়া হলেও তা সম্ভব হয়নি। ফলে ঢাকার নির্বাচিত মেয়র বিএনপির নেতা সাদেক হোসেন খোকা তার মেয়াদ চালিয়ে যেতে থাকেন। পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ক্ষমতায় এলেও নানা কারণে ওই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। এরপর মহাজোট সরকার ৬ মাসের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিধান করে ২০১১ সালের ৩০ নবেম্বর ৫৬ ওয়ার্ড নিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ও ৩৬ ওয়ার্ড নিয়ে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নামে দুই ভাগ করা হয় ডিসিসিকে। ডিসিসি দুই ভাগ করার পর সাদেক হোসেন খোকা তার পদ হারান। কিন্তু ছয় মাসের সেই নির্বাচনের আদেশ শেষ হয়ে তিন বছর পার হলেও এখনও প্রশাসকের হাতেই রয়েছে দুই কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধানে সীমানা জটিলতার মামলার অজুহাতে কোন নির্বাচন ছাড়াই চলছে সিটি কর্পোরেশনের কার্যক্রম।

এরই মধ্যে মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়া খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রাজশাহী এবং নতুন সিটি কর্পোরেশনে রূপান্তরিত রংপুর, কুমিল্লা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও বাদ থেকে যায় ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন।