১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

চসিক নির্বাচনে মহিউদ্দিন চৌধুরী ১৪ দলের প্রার্থী


স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থিতা নিয়ে সকল জল্পনাকল্পনার অবসান ঘটিয়ে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের চট্টগ্রাম শাখা আলহাজ এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীকে সর্বসম্মতিক্রমে মনোনীত করেছে। কেন্দ্রীয়ভাবে চূড়ান্ত হলে এটা হবে তাঁর পঞ্চম দফা মেয়র নির্বাচন। রবিবার দুপুরে নগরীর একটি হোটেলে ১৪ দলের এক সভায় সর্বসম্মতিক্রমে এ সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়।

সভায় আসন্ন চসিক নির্বাচনে ১৪ দলের মেয়র প্রার্থিতার বিষয়ে আলোচনা করা হয়। এ সময় উপস্থিত নেতারা মেয়র পদের জন্য আগের তিন মেয়াদের মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর পক্ষে সমর্থন দেন। তবে গৃহীত এই মতামত প্রস্তাব আকারে দলের হাইকমান্ডকে অবহিত করা হবে বলে নেতারা জানান। মহানগর ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি এ্যাডভোকেট আবু হানিফ সাংবাদিকদের জানান, আগামী ১১ মার্চ ১৪ দলের পদযাত্রাকে সামনে রেখেই মূলত এ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে চসিক নির্বাচনের প্রসঙ্গ এলে নেতারা মহিউদ্দিন চৌধুরীকেই যোগ্য প্রার্থী হিসেবে বিবেচনা করে তার প্রতি সমর্থন জ্ঞাপন করেন।

জোটের শরিক দল জাসদের সহসভাপতি ইন্দুনন্দন দত্তের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভা পরিচালনা করেন নগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক সফিকুল ইসলাম ফারুক। এতে আরও বক্তব্য রাখেন ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা শামসুদ্দিন খালেদ, নগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, নঈমউদ্দিন চৌধুরী, জাসদের নগর সভাপতি আবু বক্কর, সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন বাবুল ও ন্যাপের আলী আহমেদ নজির। উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এ্যাডভোকেট সুনীল সরকার, সাংগঠনিক সম্পাদক বদিউল আলম প্রমুখ।

এদিকে চসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থন মেয়র পদে প্রার্থী হতে আরও অন্তত দুজন জোরালো দাবিদার রয়েছেন। তাঁরা হলেন নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন এবং কোষাধ্যক্ষ ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (চউক) চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম। এছাড়া দলের সমর্থন পেলে সাবেক সংসদ সদস্য ও নগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নুরুল ইসলাম বিএসসিরও মেয়র পদে প্রার্থী হওয়ার প্রস্তুতি রয়েছে বলে জানা গেছে।

২০১০ সালের ১৭ জুন অনুষ্ঠিত হয়েছিল চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন। নির্বাচিত পরিষদের প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয় ওই বছরের ২৭ জুলাই। সে হিসেবে ওইদিনই বর্তমান পরিষদের মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। নিয়মানুযায়ী মেয়াদ শেষ হওয়ার প্রথম ১৮০ দিনের মধ্যে নির্বাচন করতে হয়। আগামী জুন মাসে রোজা থাকায় কমিশন এর আগেই সুবিধামতো সময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠানের চিন্তা-ভাবনা করছে। সে হিসেবে নির্বাচন অতি সন্নিকটে। জানা যায়, প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রাকিব উদ্দিন আহমেদ সম্প্রতি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন আগামী জুন মাসের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে অনুষ্ঠানের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

অন্যদিকে, ১৪ দলের এ সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর তার প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে মহিউদ্দিন চৌধুরী জনকণ্ঠকে জানান, বরাবরের মতো তিনি ১৪ দলের সমর্থনে নাগরিক কমিটির ব্যাপারে প্রার্থী হবেন। ১৪ দলের সর্বসম্মত এ সিদ্ধান্তের প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা জানান এবং নগরবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে চট্টগ্রামের উন্নয়নে অবদান রাখার জন্য আহ্বান জানান।

প্রসঙ্গত, ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে উত্তর ও দক্ষিণে দুই প্রার্থীর নাম ঘোষিত হয়ে গেলেও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে এখনও কেন্দ্র থেকে কারও নাম ঘোষণা করা হয়নি। অথচ একইদিনে তিন কর্পোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠানের আভাস দেয়া হয়েছে নির্বাচন কমিশন থেকে। প্রচারের সুবিধার্থে চসিকেও আগেভাগে প্রার্থী ঠিক করার বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে নেয় চট্টগ্রাম ১৪ দল। ইতোপূর্বে সেনাবাহিনীর একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামে এলে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানিয়েছিলেন, মেয়র প্রার্থী কে হবেন তা চট্টগ্রামের নেতারাই ঠিক করবেন। প্রধানমন্ত্রীর সেই বক্তব্যের আলোকেই ১৪ দল নেতারা এ সিদ্ধান্ত নেন বলে দলীয় সূত্রে জানানো হয়।

ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল ॥ চসিক নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হিসেবে চট্টগ্রামের ১৪ দল নেতারা নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করায় আনন্দ মিছিল করেছে ছাত্রলীগ। রবিবার সন্ধ্যার পর নগরীর আগ্রাবাদ, জিইসি ও ২ নম্বর গেট এলাকায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এ মিছিল বের করে। দুপুরে এক সভায় ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ মেয়র প্রার্থী হিসেবে মহিউদ্দিন চৌধুরীর নাম ঘোষণার খবরে ছাত্রলীগের কর্মীরা খ- খ-ভাবে এ মিছিল বের করে। তারা যোগ্য প্রার্থীকেই সমর্থন দেয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করে তার পক্ষে সেøাগান দেন।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: