২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৬ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

অভিজিতের খুনী জেল থেকে জামিনে বের হন ॥ খায়রুল হক


স্টাফ রিপোর্টার ॥ লেখক, ব্লগার অভিজিৎ রায়ের হত্যাকা-ের সন্দেহভাজন খুনী কারাগারে ছিলেন, জামিন নিয়ে বের হয়ে গেছেন। তাই বলা যায়, বিচার বিভাগের হাতেও রক্তের দাগ লেগে আছে। বিচারকদের প্রতি নিবেদন, এ সব জামিন দেয়ার ক্ষেত্রে অত্যন্ত সতর্ক থাকবেন। না হলে এ রকম আরও অনেক ঘটনা ঘটতে পারে। তিনি চলমান পরিস্থিতি সবাইকে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বানও জানান। ‘আমি বলব, রুখিয়া দাঁড়াও। ’৬৪ সালে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া বলেছিলেন, রুখিয়া দাঁড়াও। আমিও সেটাই বলব।’ শনিবার বইমেলায় আইন কমিশনের চেয়ারম্যান সাবেক প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হক এমনটি মন্তব্য করেছেন।

উল্লেখ্য, অভিজিতের মতোই দুই বছর আগে খুন হয়েছিলেন ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার। তার হত্যাকা-ের এক আসামি হাই কোর্ট থেকে জামিন পেলেও আপিল বিভাগ পরে তা স্থগিত করে। রাজীব হত্যাকা-ের পর ফেসবুক ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হত্যার উস্কানি দেয়ার অভিযোগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র ফারাবী শফিউর রহমান গ্রেফতার হওয়ার পর এখন জামিনে রয়েছেন। প্রতিক্রিয়ায় কোন ঘটনার উল্লেখ না করলেও জামিন দেয়ার ক্ষেত্রে বিচারকদের আরও সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন সাবেক প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হক।

বইমেলা থেকে বের হওয়ার পরপরই বৃহস্পতিবার রাতে টিএসসির সামনে দুর্বৃত্তরা কুপিয়ে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী অভিজিৎকে। এবারের মেলায় বই প্রকাশ উপলক্ষে দেশে ফিরেছিলেন তিনি। শনিবার মেলায় ঘুরে ঘুরে বই কেনার সময় অভিজিৎ হত্যাকা-ের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে বিচারপতি খায়রুল হক বলেন, ‘অভিজিতের ব্যাপারে আমার কথা হচ্ছে, আমাদের সকলকে রুখে দাঁড়াতে হবে। ‘যারা এই ঘটনার সাসপেক্টেড খুনীকে চটজলদি জামিন দিয়েছেন, তাদের হাতেও অভিজিতের রক্তের দাগ লেগে আছে। এ ঘটনায় প্রমাণিত হয়, আমাদের পুলিশ আনএফিসিয়েন্ট।’ তিনি (সাসপেক্টেড খুনী) কারাগারে ছিলেন, জামিন নিয়ে বের হয়ে গেছেন। তাই বলা যায়, বিচার বিভাগের হাতেও রক্তের দাগ লেগে আছে।’ অভিজিৎ রায়ের খুনীদের এখনও চিহ্নিত করা না গেলেও হামলার ধরন এবং আগের হুমকির বিষয়গুলো মাথায় রেখে জঙ্গী গোষ্ঠীকেই সন্দেহ করা হচ্ছে। মুক্তমনা ব্লগ সাইটের প্রতিষ্ঠাতা অভিজিৎ তার লেখালেখি নিয়ে বাংলাদেশী জঙ্গী গোষ্ঠীর হুমকি পাচ্ছিলেন।