১৮ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

আমানতের সুদের হার কমছে আজ থেকে


অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ আশানুরূপ বিনিয়োগের অভাবে ব্যাংকগুলোর কাছে প্রচুর অলস অর্থ পড়ে থাকায় আমানতে একযোগে সুদহার কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকারী ব্যাংকগুলো। আজ রবিবার ১ মার্চ থেকে সর্বোচ্চ সাড়ে ৮ শতাংশ সুদে মেয়াদী আমানত নেবে ব্যাংকগুলো। সম্প্রতি সরকারী বাণিজ্যিক ও বিশেষায়িত ব্যাংকগুলোর এমডিদের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

জানা গেছে, রাজধানীর মতিঝিলে সরকারী বিনিয়োগ সংস্থা ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) অফিসে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। আইসিবির এমডি ফায়েকুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সোনালী, জনতা, অগ্রণী, বেসিক, বাংলাদেশ কৃষি ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের এমডি এবং রূপালী ও বিডিবিএলের ডিএমডি উপস্থিত ছিলেন। এর আগে গত অক্টোবরে সরকারী ব্যাংকগুলো বৈঠক করে মেয়াদী আমানতে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ এবং ঋণে সর্বোচ্চ ১৫ শতাংশ সুদ নির্ধারণ করেছিল। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের এমডি এমএ ইউসুফ বলেন, ব্যাংকগুলোর কাছে এখন প্রচুর অলস অর্থ পড়ে থাকায় আমানতে সুদহার কমানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। আমানতের সুদ কমানো হয়েছে, ঋণের সুদ কমবে কিনা- জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমানতের সুদ কমলে স্বাভাবিকভাবে ঋণের সুদ কমার কথা। তবে আমানতের মতো একবারে ঋণের সুদ কমানো যায় না।

দেশে বর্তমানে ৫৬টি ব্যাংক প্রায় ৯ হাজার শাখা নিয়ে কার্যক্রম চালাচ্ছে। এরমধ্যে সরকারী ব্যাংকগুলোর শাখা রয়েছে প্রায় পাঁচ হাজার। গত ডিসেম্বর পর্যন্ত সরকারী ব্যাংকগুলোর কাছে দুই লাখ ২০ হাজার কোটি টাকার আমানত রয়েছে। তাদের বিতরণ করা মোট ঋণের পরিমাণ এক লাখ ৩৪ হাজার ৪শ’ ৫৪ কোটি টাকা। মোট গ্রাহকের অর্ধেকের বেশি রয়েছে এই ব্যাংকগুলোতে। প্রসঙ্গত, মুক্তবাজার অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদহার নির্ধারণ করে দিতে পারে না। তবে ব্যাংকগুলো নিজেদের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে কোন কোন ক্ষেত্রে সুদহারে সীমা আরোপ করতে পারে। এর আগে ২০১১ সালে চরম অর্থ সঙ্কটে পড়ে ব্যাংকগুলো আমানত সংগ্রহে অসম প্রতিযোগিতা শুরু করেছিল। কোন কোন ব্যাংক তখন ১৪ শতাংশ পর্যন্ত সুদে আমানত নিচ্ছিল। এমন প্রেক্ষাপটে ওই বছরের ১৮ জুন ব্যাংকগুলোর মালিকদের সংগঠন বিএবি ও এমডিদের সংগঠন এবিবি নিজেদের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে আমানতের সর্বোচ্চ সুদ ১২ শতাংশে সীমাবদ্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়।