১৭ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

আমের মুকুলের মৌ মৌ গন্ধে সুবাসিত রাজশাহী


মামুন-অর-রশিদ, রাজশাহী ॥ মৌসুমের এই সময়ে যে কেউ রাজশাহীতে পা রাখলেই প্রথমে নসিকায় অনুভূত হবে বাতাসের সঙ্গে সুবাসিত মিষ্টি গন্ধ। পাগলকরা এ ঘ্রাণ গাছে গাছে ফোটা আমের মুকুলের।

আমের শহর রাজশাহী। দেশজুড়ে রয়েছে এখানকার আমের সুখ্যাতি। রাজশাহী অঞ্চলের সারি সারি আম বাগানে এখন মুকুলের সমারোহ। অগ্নিঝরা ফাগুনের এই সময়ে এখন গাছে গাছে হলুদ আর সবুজের মহামিলন। মুকুলে ভরে গেছে প্রতিটি গাছ। তাই সুবাসিত গন্ধে মাতোয়ারা চারদিক। রাজশাহী অঞ্চলের শতকরা ৮০ শতাংশ গাছেই মুকুল এসেছে এবার। ইতোমধ্যে মুকুলের পাশাপাশি আগাম জাতের কিছু গাছে আমের গুটিও হয়ে গেছে। এ বছর আবহাওয়াও অনুকূলে। তাই বড় কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এ বছর আমের বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছে রাজশাহী কৃষি বিভাগ। জেলা ও আঞ্চলিক কৃষি অফিস জানায়, আমের জন্য এবার অনুকূল আবহাওয়া বিরাজ করছে। গত বছরের চেয়ে এবারে আমের উৎপাদন ভাল হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন কৃষিবিদ ও কৃষি সংশ্লিষ্টরা। কৃষি অফিস জানায়, বৃহত্তর রাজশাহী অঞ্চলে প্রায় ৪৯ হাজার হেক্টর জমিতে আমের বাগান রয়েছে। যা থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় সোয়া ৫ লাখ টন আম। মৌসুমের শুরুতে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় গাছে গাছে পর্যাপ্ত মুকুল এসেছে। তবে বড় আকারের গাছের চেয়ে ছোট ও মাঝারি গাছে বেশি মুকুল দেখা যাচ্ছে। মুকুলের মৌ মৌ গন্ধে বাতাস ভরে উঠতে শুরু করেছে। দেখা দিয়েছে আমচাষীদের চোখে সোনালি স্বপ্ন। রাজশাহী আঞ্চলিক ফল গবেষণা কেন্দ্র জানায়, এ বছর রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ জেলার আম বাগানগুলোতে পর্যাপ্ত মুকুল এসেছে। ফল বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মুকুল বের হতে যে তাপমাত্রার প্রয়োজন বাতাসে সে তাপমাত্রা বিরাজ করছে। কৃষি বিভাগের সূত্রমতে, এ অঞ্চলে প্রায় ২৫০ জাতের আম উৎপন্ন হয়। রাজশাহী অঞ্চলে গাছে গাছে বাহারি জাতের আম এখন দেশের মানুষের রসনা মেটাতে প্রস্তুত হচ্ছে। সব মিলিয়ে আমচাষীদের মনে এখনই উঁকি দিচ্ছে আগাম বার্তা। এদিকে, গাছে গাছে যখন মুকুলের সমারোহ, তখন কৃষকদের আর বসে থাকার সময় নেই। বহুগুণে বেড়ে গেছে তাদের ব্যস্ততা। ভাল ফলনের আশায় গাছ পরিচর্যায় বেশিরভাগ সময় কাটছে তাদের।