১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৭ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

যশোরে ইউপি সদস্যের অত্যাচারে অতিষ্ঠ ১১৬ হিন্দু পরিবার


স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ যশোরে ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে অত্যাচার ও চাঁদাবাজিতে ১১৬টি হিন্দু পরিবার জিম্মি হয়ে পড়েছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষকে আটকে রেখে নির্যাতন, চাঁদাবাজি, মারপিট ও বাঁওড়ের মাছ লুট করছে স্থানীয় চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের মেম্বার গোলাম মোস্তফা ওরফে মোস্ত ও তার বাহিনী। নির্যাতনের শিকার সদর উপজেলার চান্দুটিয়া গ্রামের চার শতাধিক নারী-পুরুষ ও হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ বুধবার সকালে প্রেসক্লাব যশোরের সামনে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে। পরে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। চান্দুটিয়া মালোপাড়ার বাসিন্দা নারায়ণ চন্দ্র বিশ্বাস জানান, স্থানীয় ঝাউদিয়া গ্রামের বাসিন্দা চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের মেম্বার আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম মোস্তফা ওরফে মোস্ত ও সবুজের নেতৃত্বে চান্দুটিয়া গ্রামের মালোদের ওপর অত্যাচার চলছে। তাদের অত্যাচারে জিম্মি হয়ে পড়েছে ওই গ্রামের ১১৬টি হিন্দু পরিবার। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি রাত ৮টার দিকে মাছ নিয়ে ঝাউদিয়া পৌঁছলে রবিন বিশ্বাস ও সঞ্জয় বিশ্বাসকে ধরে নিয়ে গিয়ে পার্শ্ববর্তী বাগানে আটকে মারপিট করে মেম্বার মোস্ত ও তার বাহিনী। এছাড়াও স্থানীয় বুকভরা বাঁওড় চান্দুটিয়া গ্রামের মালো সম্প্রদায়ের মানুষ ইজারা নিয়ে চাষ করছে। ওই বাঁওড়ের মাছ জোর করে ধরে নিয়ে যাচ্ছে মোস্ত বাহিনী। তাদের বাধা দিতে গেলে হত্যার হুমকি দেয়া হয়। একইসঙ্গে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়েছে। এমনকি মালো সম্প্রদায়ের মানুষকে ওই এলাকার রাস্তায় পেলে মারপিট ও হত্যার হুমকি দেয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে ২১ ফেব্রুয়ারি কোতোয়ালি থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। মানববন্ধনে চান্দুটিয়া গ্রামের চার শতাধিক নারী-পুরুষ অংশগ্রহণ করেন। তারা জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

উখিয়ায় জালনোট আতঙ্ক, সক্রিয় সংঘবদ্ধ চক্র

নিজস্ব সংবাদদাতা, উখিয়া, ২৪ ফেব্রুয়ারি ॥ কক্সবাজারের উখিয়ায় ব্যস্ততম হাটবাজারগুলো টার্গেট করে জালনোট চক্রের সদস্যরা সক্রিয় হয়ে উঠেছে। এসব চক্রের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে উখিয়ার কুতুপালং ও টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্প ভিত্তিক সংঘবদ্ধ চক্রের সদস্যরা। সিন্ডিকেটটি ব্যবসায়ীদের হাতে তাদের অভিনব কায়দায় তৈরি জালনোট ধরিয়ে দেয়। সোমবার উখিয়ার মরিচ্যা বাজারে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা পাখি (৪০) নামের এক মহিলাকে হাতেনাতে আটক করতে সক্ষম হয়। সে কক্সবাজারের বৈদ্যঘোনা এলাকার মোহাম্মদ হাফেজের স্ত্রী। স্থানীয়রা তাকে ধরে প্রথমে উখিয়ার হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে আসেন। পুলিশ তাকে তল্লাশি করে একহাজার টাকা মূল্যের এগারটি জাল নোট উদ্ধার করে। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উখিয়া উপজেলার কোটবাজারে এক হাজার টাকার জালনোট দিয়ে মাছবাজারে মাছ ক্রয়ের সময় এক রোহিঙ্গা যুবককে হাতেনাতে আটক করে স্থানীয় জনতা গণধোলাই দিয়ে ছেড়ে দেয়। এ ঘটনা নিয়ে ব্যবসায়ীদের মাঝে জালনোট আতঙ্ক বিরাজ করছে।